মেইন ম্যেনু

বিরল দৃষ্টান্ত তরুণীর, ১৩ বছর বয়সেই এভারেস্ট জয়!

বিরল দৃষ্টান্ত, ১৩ বছর বয়সেই এভারেস্ট জয়! বিশ্বাস না হলেও ঘটনা একেবারে সত্যি। এমন ঘটনার নজির স্থাপন করলো ১৩ বছর বয়সী মালাবাথ পূর্ণা। এভারেস্ট জয়ী তিনিই হলেন পৃথিবীর সবচেয়ে কম বয়সী তরুণী।

রোববার এ খবর দিয়েছে এনডিটিভি।

৬৫তম ভারত পুলিশ ভলিবল গেমসের একটি অনুষ্ঠানে মালাবাথ পূর্ণা বলে, এভারেস্টে যাবার ইচ্ছে আমার ছোটবেলা থেকেই। তবে এর আগে পাক-ভারত সীমান্তে নিজের পা রেখেছে বলে জানায়।

সে বলে, যেখানে কি না মানুষ যেতে ভয় পায়, আমি সেখানে আমার নিজের পায়ের ছাপ রেখে এসেছি । আমার মা-বাবা এ কাজের জন্য আমাকে নিয়ে গর্ব করেন। পূর্ণা এখন তার পড়াশোনায় মনোনিবেশ করছে।

মাউন্ট এভারেস্টে এর আগেও অনেক সাহসী ব্যক্তি নিজের নাম লিখিয়েছেন। এর মধ্যে এডমণ্ড হিলারি এবং তেনজিং শেরপা বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। ১৯৫৩ সালে তারা মাউন্ট এভারেস্টে পা রাখেন।

২০১৪ সালের ২৫ মে পূর্ণা মাউন্ট এভারেস্ট আরোহন করে এবং সফলতাও অর্জন করে। তার এই পর্বত আরোহনে অন্যান্য তরুণ-তরুণীরা আগ্রহী হবে বলে মনে করে পূর্ণা। পূর্ণাই হলো পৃথিবীর সবচেয়ে কম বয়সী তরুণী, যে কি না ৮,৮৪৮ মিটার উঁচু মাউন্ট এভারেস্ট আরোহন করে।

পূর্ণা নিজামাবাদের ছোট গ্রাম পাকালাতে বাবা-মায়ের সঙ্গে বাস করে। তার বাবা একজন খামার মালিক। তার একটি ছোট ভাই আছে। তাকে বড় হয়ে প্রকৌশলী বানানোর স্বপ্ন দেখেন তারা।

এদিকে পূর্ণার বড় হয়ে আর এস প্রবীণ কুমারের মতো আইপিএস কর্মকর্তা হবার ইচ্ছে। আর এস প্রবীণ কুমার ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশের সোস্যাল ওয়েলফেয়ার রেসিডেন্সিয়াল এডুকেশনাল ইনস্টিটিউসন সোসাইটির প্রধান।

অন্ধ্রপ্রদেশের নাজিমাবাদ জেলার এক কৃষি শ্রমিকের সন্তান পূর্ণা নবম শ্রেণীর ছাত্রীর। সরকার পরিচালিত একটি সমাজকল্যাণমূলক স্কুলে পড়াশোনা করে পূর্ণা। থাকে হোস্টেলেই।






মন্তব্য চালু নেই