মেইন ম্যেনু

বিলুপ্ত ছিটমহলে খসড়া ভোটার তালিকা ১ আগস্ট

বিলুপ্ত ছিটমহলবাসীর খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশ হচ্ছে আগামী ১ আগস্ট। এজন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

সম্প্রতি ইসির সিনিয়র সহকারী সচিব মাহফুজা আক্তার স্বাক্ষরিত এ নির্দেশনা সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রেজিস্ট্রেশন কর্মকর্তা বরাবর পাঠানো হয়েছে।

নিদের্শনায় বলা হয়েছে, খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশ করা হবে ১ আগস্ট, দাবি-আপত্তি দাখিলের শেষ সময় ১৬ আগস্ট, দাবি-আপত্তি নিষ্পত্তি ২৫ আগস্ট, খসড়া ভোটার তালিকা সংশোধন ২৮ আগস্ট এবং চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ করা হবে ৪ সেপ্টেম্বর।

এতে আরো বলা হয়, ভোটার তালিকা বিধিমালা ২০১২ এর বিধি ১৪(১) বর্ণিত বিধান অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট জেলা নির্বাচন অফিস, সংশ্লিষ্ট রেজিস্ট্রেশন অফিসারের (উপজেলা/থানা) নির্বাচন অফিস, ইউনিয়ন পরিষদ/রেজিস্ট্রেশন কেন্দ্র অথবা যে কোনো জনগুরুত্বপূর্ণ স্থানে খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশ করতে হবে।

প্রসঙ্গত, গত ১০ জুলাই বিলুপ্ত ১১১ ছিটমহলে ভোটার যোগ্য নাগরিকদের তালিকাভুক্ত করতে তথ্য সংগ্রহ ও নিবন্ধনের কাজ শুরু হয়। এসব ছিটমহলের ৩৭ হাজার ৫৩৫ জনকে বাংলাদেশি নাগরিকত্ব দেয়া হয়েছে। এদের মধ্যে ভোটারযোগ্যদের তালিকাভুক্ত করা হচ্ছে।

ইসি কর্মকর্তারা জানান, বিলুপ্ত ছিট পার্শ্ববর্তী ইউপিগুলোয় অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় এবং নাগরিকদের ভোটার তালিকাভুক্তি শেষ হলে নির্বাচন অনুষ্ঠানে আর বাধা থাকবে না। ৩৭ হাজার ৩৫৩ জন নাগরিকের মধ্যে প্রায় ৬০ শতাংশ ভোটার তালিকাভুক্ত হতে পারেন।

চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশের পর সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নগুলোতে আগামি নভেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে নির্বাচন করার পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানান ইসি কর্মকর্তা।

এর আগে চলতি বছরের মার্চে ইউপি ভোট চলার সময় বিলুপ্ত ছিটমহলের ভোটার তালিকা পুনর্বিন্যাস সম্পন্ন না হওয়ায় ১৫টির তফসিল বাতিল করে ইসি। ইউপিগুলো হল- পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলার ময়দানদিঘি, কাজলদিঘি কালিয়াগঞ্জ, মারেয়া, বামোনহাট, বড়শশী। কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী উপজেলার ভুরুঙ্গামারী সদর, পাথরডুবী, শিলখুড়ি, লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম উপজেলার শ্রীরামপুর বুড়িমারী, পাটগ্রাম, কুচলীবাড়ি, জগতবেড়, জোংড়া, বাউরা এবং হাতিবান্ধা উপজেলার গোতামারী।

প্রসঙ্গত, দুই দেশের স্থলসীমান্ত চুক্তি অনুযায়ী, ১ অগাস্ট প্রথম প্রহর থেকে ভারতের ১১১টি ছিটমহল বাংলাদেশের ভূখণ্ডে যুক্ত হয়। এর বাসিন্দারাও বাংলাদেশের নাগরিক হয়ে যান। একইভাবে ভারতের মধ্যে থাকা বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহল ভারতের অংশ হয়ে যায়।






মন্তব্য চালু নেই