মেইন ম্যেনু

বিশ্বজুড়ে তারকাখ্যাতি পেয়েও বদলে যাননি সেই মুস্তাফিজ

পুরো ক্রিকেট বিশ্বই মাতিয়ে বেড়াচ্ছেন সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ গ্রামের লাজুক প্রকৃতির মুস্তাফিজুর রহমান। বোলিংয়ে যে কি পরিমাণ বিষ রয়েছে সেটা টের পেয়েছে ক্রিস গেইল, স্টিভেন স্মিথ থেকে শুরু করে কেন উইলিয়ামসন কিংবা রোহিত শর্মাদের মত বিশ্বসেরা ব্যাটসম্যানরা।

বিশেষ করে বলতে গেলে নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা। বিশ্বকাপের শেষ ম্যাচে মাত্র ২২ রানে ৫ উইকেট নিয়ে টুর্নামেন্টের সেরা বোলিং ফিগারটিও এখন তার দখলে। অথচ মুস্তাফিজের চলাফেরা একদমই সাধারণ। গ্রামে ফিরে গিয়েই সকলের মধ্যমণিতে রূপান্তরিত হয়েছেন মুস্তাফিজ। তারকাখ্যাতি পেয়েও একদমই বদলে যাননি মুস্তাফিজ। গ্রামবাসীদের কাছে তিনি সেই আগের মুস্তাফিজ হয়েই আছেন।

বিশ্বকাপ মিশন শেষ করে মাত্র কয়েকদিনের ছুটিতে এসেছেন গ্রামের বাড়ি সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার তেঁতুলিয়া গ্রামে। গ্রামের মেঠো পথে নিজের মটরসাইকেল বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরে বেড়াচ্ছেন গায়ে হাওয়া লাগিয়ে। ছোট শিশুদের কোলে তুলে আদর করছেন।

তার বাড়িতে গিয়ে দেখে গেছে, উঠানে বন্ধু, ভাই, প্রতিবেশীদের নিয়ে খোশ গল্পে মত্ত। বিশ্বকাপ মিশনের নানা অভিজ্ঞতার কথা শেয়ার করছেন তিনি। ছোট ছেলে বাড়িতে এসেছেন এজন্য মা তার প্রিয় খাবার রান্না করে খাওয়াচ্ছেন।

আগাগোড়াই গণমাধ্যমকর্মীদের সামনে একটু লাজুক মুস্তাফিজ। তার ওপর কথা বলা নিষেধ আছে ক্রিকেট বোর্ডের পক্ষ থেকে। তারপরও আলাপচারিতায় বিভিন্ন কথা উঠে এলো। কিউইদের বিপক্ষে পাঁচ উইকেট পাওয়ার অনুভূতি জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘পাঁচ উইকেট পাওয়া সব সময় ভালো লাগার বিষয়। তবে দল জিতলে বেশি খুশি হতাম।’

কিছুদিন পর কাউন্টি ক্রিকেট খেলতে যাবেন মুস্তাফিজ। খেলবেন সাসেক্সের হয়ে। ইংল্যান্ডের পিচ, মাঠ, আবহাওয়া পেস বোলারদের সহায়ক। এমন পরিস্থিতি বিশেষ কোনও পরিকল্পনা আছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এসব বিষয়ে যোগাযোগ রাখি না, ফোন দিলেই চলে যাব। মাঠে নামার আগে কোনও পরিকল্পনা থাকে না। মাঠে নামার পর নতুন নতুন পরিকল্পনা মাথায় আসে।’ একইসঙ্গে জানালেন ইনজুরি কাটিয়ে তিনি আরও উজ্জিবীত। আইপিএল ও সাসেক্সে দেখাতে চান নতুন চমক।

মাত্র কয়েকদিনের ছুটিতে বাড়িতে এসেছেন। এই সময়টা ক্রিকেট থেকে দূরেই থাকছেন এই কাটার মাস্টার। তিনি বলেন, ‘শর্ট শিডিউল এসেছি। এ জন্য এই ক’দিন পরিবারের সঙ্গে পুরো সময়টা কাটাতে চাই।’

সুনিবিড়-সবুজ-শ্যামল গ্রামের শান্তির ছায়া এবং সুবাতাসের মায়া কাটিয়ে ঢাকায় ফিরবেন ৩ এপ্রিল। তারপর হয়তো রওনা হবেন ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগ আইপিএলের উদ্দেশ্যে।

এবার লক্ষ্য আরো বড়। আইপিএল মাতাতে কয়েকদিন পরেই ভারত যাবেন কাটার মাস্টার। ভারতের জমজমাট এই ঘরোয়া লিগে তিনি নিয়ে আসবেন আরও নতুন চমক- এমনটাই জানালেন মুস্তাফিজ।






মন্তব্য চালু নেই