মেইন ম্যেনু

বিশ্বের সবচেয়ে বড় ঝুঁকি হলেন ‘ট্রাম্প’

বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ঝুঁকি হলেন ‘ট্রাম্প’। ট্রাম্প প্রশাসনের নেওয়া অর্থনৈতিক, পররাষ্ট্র ও নিরাপত্তা নীতিগুলো বিশ্বের সবচেয়ে বড় অনিশ্চয়তা ও ঝুঁকি নিয়ে আসছে। এমনটাই মনে করছেন অর্থনীতিবিদ ন্যুয়েল রুবিইনি।

ন্যুয়েল রুবিইনি যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক—বিখ্যাত হয়ে আছেন তাঁর বিভিন্ন অর্থনৈতিক পূর্বাভাসবিষয়ক মন্তব্য নিয়ে। ২০০৮ সালের অর্থনৈতিক মন্দার বিষয়ে আগেই যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করেছিলেন তিনি। ‘ড. ডুম’ (নিয়তি) নামে পরিচিত এই অর্থনীতিবিদ বিভিন্ন সময়ে অর্থনৈতিক আশঙ্কাগুলো বিশ্লেষণ দিয়ে তুলে ধরেন।

বুধবার ‘সিএনএন মানি’কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ন্যুয়েল রুবিইনি বলেন, ট্রাম্পের বিভিন্ন নীতিতে যে নেতিবাচক প্রভাব রয়েছে, তা গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করছে না পুঁজিবাজার। নিজের বক্তব্যের পক্ষে যুক্তিও তুলে ধরেন রুবিইনি। তিনি বলেন, কয়েকটি কারণে ওয়ালস্ট্রিট এখনো আশঙ্কাগুলো নিয়ে সতর্ক হচ্ছে না। জানুয়ারিতে ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত এসঅ্যান্ডপি ৫০০ সূচক বেড়েছে ১১.৬ শতাংশ। কর কমানো, নিয়ন্ত্রণ কমানো, অবকাঠামো খাতে ব্যয়ের কারণে এই সূচক বেড়েছে। ঝুঁকি নির্ধারণের আরেকটি সূচক ভোলাটিলিটি ইনডেক্সের (ভিআইএক্স) অবস্থান এখন মাত্র ৯ দশমিক ৯ পয়েন্টে; যা ২০০৭ সালের মধ্যে সর্বনিম্ন। ২০০৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক মন্দার সময় এই সূচকটির অবস্থান ছিল ৯০।

স্বল্প মেয়াদে পুঁজিবাজারের পরিস্থিতি ভিআইএক্স সূচকের মাধ্যমে নির্ণয় করা হয়। এই সূচক যত ঊর্ধ্বমুখী হয়, পুঁজিবাজারে অস্থিরতার ঝুঁকি বেশি হয়। সব মিলিয়ে ট্রাম্পের নেওয়া নীতিতে খুব শান্ত আচরণ করছে ওয়ালস্ট্রিট।

সাবেক গভর্নর বেন বার্নানকে বিনিয়োগকারীদের বর্তমান ব্যবহার নিয়ে কিছুটা শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন, বিনিয়োগকারী অতিশয় আশাবাদী। অথচ ট্রাম্পের ৩ শতাংশ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্য এখন অনেক দূরের ভাবনা। বর্তমানে বিশ্বের অন্যতম কম প্রবৃদ্ধির দেশ এখন যুক্তরাষ্ট্র।

একই ধরনের কথা বলছেন রুবিইনি। ট্রাম প্রশাসনকে ‘অসমর্থিত’ অভিহিত করে কয়েকটি ঝুঁকির দিক তুলে ধরেন তিনি। সেগুলো হলো—

১. সংরক্ষণ সমর্থক নীতি বাণিজ্যযুদ্ধকে উসকে দেবে।
২. সীমানা বন্ধের সিদ্ধান্তের কারণে বিদেশের দক্ষ শ্রম ও মেধা আসতে পারবে না।
৩. অধিক হারে কর কমানোর সিদ্ধান্ত যুক্তরাষ্ট্রের ঘাটতি বাড়িয়ে দেবে।

ন্যুয়েল ট্রাম্পের কর পরিকল্পনা একটা ‘জোক’ বা মজা বলে উপহাস করেন। তিনি আশঙ্কা করছেন, এটি যুক্তরাষ্ট্রের আয়বৈষম্য সমস্যাকে একদম নিকৃষ্টতম জায়গায় নিয়ে যাবে। এ পরিকল্পনার কারণে এক দশকে প্রায় সাড়ে পাঁচ ট্রিলিয়ন ডলার রাজস্ব হারাতে পারে যুক্তরাষ্ট্র। ঘাটতি বাড়তে থাকলে যুক্তরাষ্ট্রের ঋণ পরিশোধে সক্ষমতা কমে যাবে। সুদের হার দ্রুত বাড়তে শুরু করবে। এ কারণে বিভিন্ন মুদ্রার বিপরীতে শক্তিশালী হবে ডলার; যা যুক্তরাষ্ট্রের শিল্পপণ্যে প্রতিযোগিতার সক্ষমতা কমিয়ে দেবে। রপ্তানিকারকেরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। সব মিলিয়ে রুবিইনি মনে করেন, এই নীতিগুলো একদমই ভালো খবর নয় যুক্তরাষ্ট্রের জন্য।
আর ট্রাম্পের এসব নীতি একটা সময় তার মৌলিক সমর্থকদেরও মানসিক আঘাত করবে বলে মনে করেন তিনি।

সিএনএন মানি অনলাইন অবলম্বে শাকিলা হক






মন্তব্য চালু নেই