মেইন ম্যেনু

বিশ্বের সবচেয়ে বৈচিত্রময় ৪টি ডাইভিং ডেস্টিনেশন

পানির নিচে ডাইভিং করতে ভালবাসেন? নীল-সবুজ স্বচ্ছ জল আর তার গভীরে রঙ্গীন মাছেরা খুব টানে আপনাকে? তাহলে নিশ্চয়ই জানেন আপনি বিশ্বের একেক অঞ্চলের সমূদ্রের রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন মেজাজ! স্রোতের পার্থক্য, জলের ধরণ এনেছে জীব বৈচিত্র্য। জলের রঙও সবখানে এক নয়। এক নয় কোরালের গঠন।

ভিন্ন ভিন্ন এলাকা থেকে ভিন্ন ভিন্ন ডাইভিং এর স্বাদ নিয়ে করে ফেলুন একটি তালিকা। আপনার সেই তালিকায় প্রথম ৪টি স্থান হোক নিচের ডাইভিং এর জন্য বিশেষভাবে বিখ্যাত এই জায়গাগুলো-

পালাউ
পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরের পালাউ একটি ভিন্নধর্মী পাথুরে দ্বীপ। এখানে সমুদ্রে্র পানি আছে একই রকম বিশুদ্ধ যেমনি ছিল শত শত বছর আগেও। সামুদ্রিক জীবনও আছে নির্বিঘ্ন, আদিম। এটি ১৫০০ প্রজাতির মাছেদের বসবাসস্থল। স্বচ্ছ জলের অনেকটা গভীরে যেতে পারবেন আপনি, উপভোগ করতে পারবেন অপূর্ব বৈচিত্র যা চোখ ধাধিয়ে দেবে যে কারও। বিচিত্র কোরাল গার্ডেন, জেলিফিশ লেক, নীল গহবর আপনার চোখে বদলে দেবে জীবনের মানে। এই জেলিফিশরা বিষাক্ত নয়, তাই আপনি সানন্দে সাঁতার কেটে বেড়াতে পারবেন এদের মাঝে। শার্ক এবং বড় প্যালাগিক্স ধরতে যেতে পারবেন নৌকায় বিখ্যাত ব্লু কর্নারে।

নরওয়ে
ভাইকিংস এর জলে হারিয়ে যান কোন রূপকথার গল্পে। ভেসে বেড়ান রঙ্গীন থেকে আরও রঙ্গীন সামুদ্রিক প্রানীদের ভিড়ে। ভিন্নধর্মী ডাইভিং, আদিম fjords এবং মেরিন লাইফ উপভোগের চমৎকার সুযোগ রয়েছে এখানে। প্রতি বছর অসংখ্য পর্যটক নরওয়ে ভ্রমণে আসে এর সামুদ্রিক সম্পদ দু’চোখ ভরে উপভোগের উদ্দেশ্যে। এটি পৃথিবীর একমাত্র জায়গা যেখানে আপনি সমূদ্রের সবচেয়ে বড় শিকারী প্রাণী কিলার তিমিদের সাথে স্কুবা করতে পারবেন।

বেলিজ
দ্যা গ্রেট ব্লু হোল বেলিজ উপকূল থেকে ১০০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। এটি পানির গভীরে একটি গহবর। গবেষকদের মধ্যে পৃথিবীতে যে কয়টি এমন গহবর রয়েছে এটি তাদের মধ্যে সবচেয়ে বড়। গোলাকৃতির গহবরটি চমৎকার নীল রঙের কারণে আলাদা আকর্ষণের তৈরি করে। এর বিস্তৃতি ৩০০ কিলোমিটার এবং গভীরতা ১২৫ মিটার। এটি একটি উপহ্রদের প্রবাল প্রাচীরের মধ্যে অবস্থিত যার নাম লাইটহাউজ রিফ। পুরো গহ্বরটিকে ঘিরে আছে একটি কোরাল দ্বীপ যার তীরে এসে গাঢ় নীল রঙের পানি হালকা ফিরোজায় রূপ নিয়েছে। এখানে পানির গভীরতাও কম। কোরাল দ্বীপটি একটি চমৎকার শেড এনে দিয়েছে গহ্বরটিকে। উপর থেকে দেখলে নীলের এই বর্ণচ্ছটা মুগ্ধ করবে আপনাকে। জীবনে একবার এখানে ডাইভিং না করলে অপূর্ণ রয়ে যাবে আপনার রোমাঞ্চের ঝুলি।

মালদ্বীপ
ভারত মহাসাগরের রত্ন যেন এই মালদ্বীপ। আপনি যদি সাদা বালির বীচ, নভোনীল জল আর অনন্ত বিশ্রামের সাথে উপভোগ করতে চান ডাইভিং তাহলে আর অন্য কোন দিকে নয়, মালদ্বীপেই বেড়িয়ে আসুন। সমুদ্রকে উপভোগের সমগ্র আয়োজন আছে এখানে। প্রকৃতিকে বিশুদ্ধ রেখে, অবিকৃত রেখেই আপনি সানন্দে স্বাদ নিতে পারবেন স্বচ্ছ জলের। অবশ্যই যাবেন Vaavu Atoll এ এবং সাঁতরে এক্সপ্লোর করুন সমুদ্রের রহস্যকে।

সমুদ্র বদলে দেয় মানুষের জীবন। সমুদ্র মানেই যেন প্রশান্তি, পবিত্রতা। তাই ভ্রমণ করুন, দেখুন, সঞ্চয় করুন জীবনের সবচেয়ে অমূল্য অভিজ্ঞতা।






মন্তব্য চালু নেই