মেইন ম্যেনু

বিশ্ব গণমাধ্যমে রাবি শিক্ষক হত্যার খবর

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ড. এ এফ এম রেজাউল করিম সিদ্দিকীকে বোয়ালিয়া থানার শালবাগান এলাকার বটতলা মোড় এলাকায় শনিবার সকালে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। মহানগর পুলিশ কমিশনার মোহম্মদ শামসুদ্দিন বলেছেন, ‘হত্যার ধরন দেখে মনে হচ্ছে চরমপন্থীরা এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে’।

রাবির এই শিক্ষকের হত্যার ঘটনা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রভাবশালী গণমাধ্যমে বেশ গুরুত্বের সঙ্গে প্রচার ও প্রকাশ করা হয়েছে। ব্রিটেনের প্রভাবশালী সংবাদ মাধ্যম বিবিসি ‘রাজশাহীতে বাংলাদেশি বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাপককে কুপিয়ে হত্যা’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। বাংলাদেশি এই শিক্ষককে হত্যার খবরটি বিবিসি প্রধান প্রতিবেদন করেছে। সেখানে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে, পুলিশ বলছে, অতীতে একই ধরনের হামলায় বেশ কয়েকজন ধর্মনিরপেক্ষ ব্লগার এবং নাস্তিক কর্মী খুন হয়েছে।

ড. এ এফ এম রেজাউল করিম সিদ্দিক (৫৮), দেশটির পশ্চিমাঞ্চলের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ছিলেন। বাড়ি থেকে বিশ্ববিদ্যালয় যাওয়ার পথে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা রামদা নিয়ে তার ওপর হামলা চালায়। গত বছর চার বিশিষ্ট ধর্মনিরপেক্ষ ব্লগারকে রামদা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

রাজশাহীর উপ-পুলিশ কমিশনার নাহিদুল ইসলাম বার্তাসংস্থা এএফপিকে বলেন, সিদ্দিক সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ছিলেন, বাগমারায় একটি স্কুল প্রতিষ্ঠান করেছিলেন; এই এলাকায় নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গিগোষ্ঠী জামায়াতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) সাবেক ঘাঁটি ছিল।

বিবিসি বলছে, চলতি মাসের শুরুতে বাংলাদেশি এক আইনের শিক্ষার্থী যিনি অনলাইনে সেক্যুলার মতবাদ প্রকাশ করতেন, রাজধানী ঢাকায় রামদা দিয়ে তার ওপর হামলা চালানো হয়, পরে গুলি চালিয়ে হত্যা করা হয়। গত বছর চার ব্লগার খুন হন; ২০১৩ সালে একটি ইসলামিক গোষ্ঠীর তৈরি করা ৮৪ নাস্তিক ব্লগারের তালিকায় ছিলেন তারা।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা ‘বাংলাদেশে অধ্যাপককে কুপিয়ে হত্যা’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এতে পুলিশের বরাত দিয়ে বলা হয়েছে, অজ্ঞাত দুর্বৃত্তদের হামলায় বাংলাদেশে বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপক খুন হয়েছেন। অতীতে ব্লগার ও অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে এই হত্যার মিল রয়েছে।

এ ঘটনার পর তদন্ত শুরু হয়েছে উল্লেখ করে পুলিশ কর্মকর্তা গোলাম সাকলাইন বলেন, দুই অথবা তিনজন হামলাকারী মটরসাইকেলে চড়ে সিদ্দিকের ওপর হামলা চালিয়ে তার গলা কেটে এবং এতে তার মৃত্য হয়। কাতারের এই সংবাদমাধ্যমও পুলিশ কমিশনারের বরাত দিয়ে বলছে, পূর্বের ধর্মনিরপেক্ষ ব্লগার ও অনলাইন অ্যাক্টিভিস্টদের হত্যা ও এ হত্যাকাণ্ড একই ধরনের।

আলজাজিরা বলছে, ২০১৩ সালের পর থেকে কয়েকজন স্যেকুলার ব্লগার ও অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট হত্যায় স্থানীয় হামলাকারীদের দায়ী করা হয়, এর মধ্যে সর্বশেষ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে চলতি মাসে রাজধানী ঢাকায়। ২০১৩ সালে নাস্তিক ব্লগার আহমেদ রাজিব হায়দারকে হত্যায় নিষিদ্ধঘোষিত আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের প্রতিষ্ঠাতা একজন শীর্ষনেতাসহ আটজনকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়।

ভারতের প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি বাংলাদেশি এই অধ্যাপক হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। ‘বাড়ির কাছে বাংলাদেশি অধ্যাপক রেজাউল করিমকে কুপিয়ে হত্যা’ শিরোনামে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আজ সকালে বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে বাড়ির কাছে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা একজন অধ্যাপককে কুপিয়ে হত্যা করেছে। মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশটিতে বুদ্ধিজীবী ও কর্মীদের ওপর নৃশংস সিরিজ হামলার সর্বশেষ ঘটনা এটি।

এছাড়াও পাকিস্তানের প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম ডননিউজ, এক্সপ্রেস ট্রিবিউন, ভারতের টাইমস অব ইন্ডিয়া, হিন্দুস্তান টাইমস, ব্রিটেনের দ্য গার্ডিয়ান, অস্ট্রেলিয়ার এবিসি নিউজসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সংবাদ মাধ্যমে গুরুত্বের সঙ্গে রাবি শিক্ষক রেজাউল করিমকে কুপিয়ে হত্যার খবর প্রকাশ করা হয়েছে। এ হত্যাকাণ্ডে ইসলামি চরমপন্থী গোষ্ঠী জড়িত থাকতে পারে বলে পুলিশের বরাত দিয়ে বেশ কয়কটি সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই