মেইন ম্যেনু

বিশ্ব সুন্দরী থেকে যৌনকর্মী!

মস্কোর সুন্দরী প্রতিযোগিতায় রানারআপ হন আন্না ফিসেনকো। এর পরপরই তিনি রাশিয়া থেকে দুবাইয়ে উড়াল দেন।

আন্নার বন্ধু ও পরিবারের আশংকা, সেখানে ১৭ বছর বয়সী এই মডেল নিজের সতীত্ব ১০ হাজার পাউন্ডে এক আরব শেখের কাছে বিক্রি করতে গেছেন।

এরপর আন্না ফিসেনকোর মা ওলগা ফিসেনকো মেয়েকে দেশে ফেরার অনুরোধ জানিয়ে এসএমএস দিয়েছেন। কিন্তু গত মঙ্গলবার ফেরার কথা থাকলেও আন্না রাশিয়ায় আসেননি।

জানা গেছে, চলতি বছরের জুনে মিস মস্কো প্রতিযোগিতায় রানারআপ হন আন্না ফিসেনকো। এরপর একটি পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে পারফর্ম করতে সংযুক্ত আরব আমিরাতে যাচ্ছেন বলে দেশ ছাড়েন তিনি।

কিন্তু আন্নার বন্ধুরা জানায়, সত্য হল- আন্না আরবের এক শেখের কুমারী সঙ্গের ইচ্ছা মেটাতে দুবাইতে স্কট সেবা দিতে গেছে। এ থেকে উপার্জিত অর্থ সে মস্কো ফিরে পড়াশোনার কাজে ব্যয় করতে পারবে, এই আশায়।

মূলত আন্না ফিসেনকোর ভ্রমণসঙ্গী ১৯ বছর বয়সী একাটেরিনা কে তার এই দুবাই যাওয়ার উদ্দেশ্যে ফাঁস করেছেন।

তিনি জানান, মিস মস্কো প্রতিযোগিতার পুরস্কার আনার কথা বলে আন্না তাকে সঙ্গে যাওয়ার নিমন্ত্রণ করেছিল। পরে সে তার সঙ্গে দুবাই যান।

একাটেরিনা বলেন, ‘দুবাই যাওয়ার দু’দিন পর একটি দুর্ঘটনার পর আমি সেখানে যাওয়ার সত্য সম্পর্কে জানতে পারি। এরপর আমি আন্নাকে বলি, তার সঙ্গে আর থাকা সম্ভব না এবং দেশে ফিরতে চাই।’

তিনি বলেন, ‘আন্না আমাকে থাকতে জোর করে। তাকে একা রেখে কেন দেশে ফিরব- এমন প্রশ্ন করতে থাকে। কিন্তু আমার এ ধরনের কাজের কোনো প্রয়োজন ছিল না।’

এরপর মেয়ের কাছ থেকে তথ্য পেয়ে একাটেরিনার বাবা-মা দুবাই উড়ে গিয়ে তাকে নিয়ে রাশিয়া ফেরেন। আর এ বিষয়টি আন্নার মাকে অবহিত করলে তিনি মেয়েকে ফেরত আনতে রাশিয়ান পুলিশের সাহায্য চান।

ওলগা ফিসেনকো বলেন, ‘আমি সব সময় আন্নার সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি। অন্য মায়েদের মতো আমিও আমার মেয়েকে নিয়ে উদ্বিগ্ন।’

তিনি বলেন, ‘দুবাইতে কি ঘটে, আমি অনেক রিয়েলিটি শোতে তা দেখেছি। এরপর আমি তাকে ফেরাতে পুলিশের সাহায্য চেয়েছি।’

আন্না দুবাইতে হোটেলে খুব বেশি দিন থাকেননি। পূর্ব ইউরোপের আরও দু’জনমেয়ের সঙ্গে তিনি একটি ফ্লাট নিয়ে নিয়মিত স্কটের কাজ করছেন।






মন্তব্য চালু নেই