মেইন ম্যেনু

যেখানে বিয়ের আগেই কনের সাথে সহবাস করতে হয়!

‘মা’ না-হওয়া অবধি কোনও মেয়ের পূর্ণতা আসে না। বলা হয়, মাতৃত্বই জীবনের চরম পাওয়া। কিন্তু কেউ মা হবেন কি হবেন না, সন্তান ধারণ করবেন কি করবেন না, সেটা সম্পূর্ণ তাঁর ব্যক্তিগত অধিকার।

কারও হস্তক্ষেপ কাঙ্ক্ষিত নয়। কিন্তু, কোনও মেয়ে যদি বিয়ের আগেই মা হয়? সমাজে ছিছিক্কার পড়ে যায়। প্রশ্ন ওঠে মেয়েটির চরিত্র নিয়েও। তাই এমন দুর্ঘটনা ঘটে গেলে, অর্থাত্‍‌ বিয়ের আগেই কেউ অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে, গর্ভপাত করাতে ছুটতে হয়। লোকলজ্জার ভয়।

কিন্তু, বাংলারই এক প্রত্যন্ত অঞ্চলে, মেয়েদের বিয়ের আগে মা হওয়াটা কিন্তু বাধ্যতামূলক। সেখানে মাতৃত্বই দেয় পছন্দের সেই পুরুষকে বিয়ের অধিকার। এটাই রেওয়াজ ‘টোটো’দের। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের আলিপুরদুয়ারের বীরপাড়া-মাদারিহাট ব্লকের সেই অঞ্চল টোটেদের জন্যই পরিচিত টোটোপাড়া নামে। মাত্রই কয়েক ঘর টোটো। সংখ্যায় সবমিলিয়ে ১৫৮৪ টোটোর বাস। কোনওমতে নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রেখেছেন এই উপজাতিরা।

এখানে টোটো সমাজে পুরুষের অধিকার রয়েছে কোনও মেয়েকে বেছে নেওয়ার। ছেলেটির পছন্দ হলে, মেয়েটিকে ওই পুরুষের সঙ্গে একবছর সহবাস করতে হবে। তার মধ্যে মেয়েটি গর্ভবতী হলে, তবেই বিয়ে করার উপযুক্ত হয়ে উঠবেন। তবে, বিয়ের বন্ধনে বাঁধা পড়ার আগে দুই পরিবারের অনুমতি নিতে হবে যুগলকে।

টোটোপাড়ায় আজও এ নিয়মের ব্যতয় হয় না।






মন্তব্য চালু নেই