মেইন ম্যেনু

বিয়ের দাবিতে কৃষি কর্মকর্তার অফিসে প্রেমিকার অনশন

প্রেমিকাকে এড়িয়ে যেতে গাইবান্ধা থেকে বদলি নিয়ে লালমনিরহাটে চলে আসেন তিনি। কিন্তু তাতেও শেষ রক্ষা হলো না লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা কুমার প্রণয় বিষাণ দাশের। লালমনিরহাটে হাজির প্রেমিকা পদ্মকলি (ছদ্মনাম)। বিয়ের দাবিতে তিন দিন ধরে তিনি অনশন করছেন ওই কৃষি কর্মকর্তার অফিসে।

এ নিয়ে স্থানীয়ভাবে মীমাংসার উদ্যোগ চলছে। পুলিশ বলছে, প্রেমিকা অভিযোগ জানালে তারা ব্যবস্থা নেবে।

জানা গেছে, গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় কর্মরত থাকাকালে কৃষি কর্মকর্তা কুমার প্রণয় বিষাণের সঙ্গে সেখানকার এক স্কুলশিক্ষকের উচ্চশিক্ষিতা মেয়ে পদ্মকলির প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। কিন্তু গোত্রীয় বৈষম্যের কারণে বিয়েতে প্রেমিকার পরিবারের পক্ষ থেকে আপত্তি ওঠে।

এদিকে তদবির করে সুন্দরগঞ্জ থেকে লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলায় বদলি হয়ে আসেন কুমার প্রণয়। কিন্তু প্রেমিকের এই আচরণ আর গোত্রীয় বৈষম্য মানতে নারাজ পদ্মকলি। সুন্দরগঞ্জ থেকে ছুটে আসেন কালীগঞ্জে। বিয়ের দাবিতে গত বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) দুপুর থেকে প্রেমিকের কর্মস্থলে আমরণ অনশন করছেন প্রেমিকা।

নানা নাটকীয়তার পর শুক্রবার বিকালে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাহবুবুজ্জামান আহম্মেদ উভয় পক্ষের অভিভাবকদের ডেকে এনে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করছেন। কিন্তু এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (শনিবার দুপুর) কোনো সমাধান হয়নি। প্রেমিকার অনশন চলছে।

কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আরজু মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু কৃষি অফিসার নজরুল ইসলাম স্থানীয়ভাবে আপোষের কথা বলায় আইনি ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। তবে মেয়েটি অভিযোগ দিলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহীনুর আলম জানান, মেয়েটির অভিযোগ তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে কৃষি অফিসারকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

উপজেলা চেয়ারম্যান মাহবুবুজ্জামান আহম্মেদ জানান, জিজ্ঞাসাবাদে দুজনই তাদের সম্পর্কের কথা স্বীকার করেছেন। তাই তাদের অভিভাবকদের ডেকে আনা হয়েছে। আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা চলছে।






মন্তব্য চালু নেই