মেইন ম্যেনু

বিয়ের প্রলোভনে দেখিয়ে প্রতিবন্ধিকে দীর্ঘদিন ধর্ষণ : অবশেষে ৭ মাসের অন্তঃসত্তা

টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল উপজেলার আনেহোলা ইউনিয়নে শাটশলা গ্রামে বিয়ের প্রালোভন দেখিয়ে এক প্রতিবন্ধি(২৫) মেয়েকে কে দীর্ঘদিন ধর্ষণ:৭ মাসের অন্তঃসত্তার ঘটনায় মনিরের নামে ঘাটাইল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

প্রতিবন্ধি পরিবার সূত্রে জানা যায়, একই গ্রামের মৃত হযরত আলীর ছেলে মনিরের বাড়িতে ওই প্রতিবন্ধি রাতে ঘরে থাকা অবস্থায় তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে একই কথা বলে একাধিকবার ধর্ষণ করলে ওই প্রতিবন্ধি ৭ মাসের অন্তঃসত্তা হয়ে পড়ে। অন্তঃসত্তার খবরজেনে লম্পট মনির প্রতিবন্ধি পরিবারকে মামলা না করার ও কাউকে কিছু না বলার জন্য দীর্ঘদিন যাবৎ ভয়ভিতি দেখিয়ে আসছে। মনিরের ভয়ে ওই প্রতিবন্ধি এতদিন কাউকে কিছু বলেনি।

ঘটনাটি জানাজানি হলে এলাকার মাতাব্বগণ থানায় মামলা না করার জন্য নিষেধ করে বলেন যে, তারা বিষয়টি মিমাংসা করে দিবে। মাতাব্বরদের আশ্বাসে ওই পরিবার থানায় কোন প্রকার মামলা করেনি।

এলাকাবাসী জানান, স্থানীয় মাতাব্বররা বিষয়টি নিয়ে তালবাহানা করে ঘুষ খাওয়ার পায়তারা করছিল।

একই এলাকার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক মুরুব্বী জানান, আনেহোলা ইউনিয়নের শাটশলা গ্রামের মাতাব্বর মুরতুজ তালুকদার ওই লম্পট মনিরের নিকট মোটা অংকের টাকা নিয়ে ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে চলছে এবং ওই প্রতিবন্ধি পরিবারকে মামলা না করতে নিষেধ করেছে।

এ বিষয়ে ঘাটাইল থানার তদন্ত (ওসি) গোলাম মোস্তফা জানান, প্রতিবন্ধি পরিবার নিরীহ থাকায় ভয়ে কাউকে জানাতে সাহস পায়নি এবং এলাকার মাতাব্বগণ থানায় মামলা না করার পরামর্শ দিয়ে আপস মিমাংশা করতে চেয়েছিল। পরে আমরা প্রতিবন্ধির অন্তঃসত্তার খবর শুনে গত মঙ্গলবার (১৮ আগস্ট) সন্ধ্যায় আমি একদল পুলিশ নিয়ে ওই প্রতিবন্ধির বাড়িতে যাই। তদন্তের প্রেক্ষিতে ওই অন্তঃসত্তা ও তার মাকে থানায় নিয়ে এসে একটি মামলা গ্রহণ করি।






মন্তব্য চালু নেই