মেইন ম্যেনু

বৃষ্টির কারণে বাংলাদেশের যত ড্র

ক্রিকেট গৌরবময় অনিশ্চয়তার খেলা। এখানে নিশ্চিত করে কিছুই বলা যায় না। তবে অনুমান করা যায়। যেমনটা অনুমান করা গিয়েছিল বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যকার ঢাকা টেস্টে। বৃষ্টির কারণে এই টেস্টের প্রথম চার দিনে খেলা হয়েছিল শুধু প্রথম দিন। তিন দিনই চলে যায় বৃষ্টির পেটে। সোমবার শেষ দিনে অবশ্য বৃষ্টি ছিল না। এদিন খেলা হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আউটফিল্ড ভেজা থাকায় শেষ দিনের খেলাও পরিত্যক্ত ঘোষণা করেন আম্পায়াররা। ফলে নিষ্প্রাণভাবেই ম্যাচটি ড্র হয়। আর বৃষ্টির কারণে এটা বাংলাদেশের নবম ড্র। যার শেষ দুটিই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে। চট্টগ্রামে দুই দলের প্রথম ম্যাচটিও বৃষ্টির কারণ ড্র হয়।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ঢাকা টেস্টসহ এ পর্যন্ত বাংলাদেশ টেস্ট খেলেছে মোট ৯৩টি। তার মধ্যে জিতেছে ৭টিতে। ড্র করেছে ১৫টিতে। এই ১৫টি ড্রয়ের মধ্যে ৬টি ম্যাচ বাংলাদেশ পুরো পাঁচদিন খেলে ড্র করেছে। বাকি ৯টি? বাকি ৯টি ম্যাচ বাংলাদেশ বৃষ্টির কারণে ড্র করেছে। আর এই ৯টি ম্যাচের ৮টিই ড্র হয়েছে ঘরের মাঠে এবং এ বছরই তিনটি।

বৃষ্টির কারণে বাংলাদেশ প্রথমবার টেস্ট ড্র করে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। ২০০১ সালে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে মাঠে নামে বাংলাদেশ। বৃষ্টির কারণে দুইদিন খেলা মাঠে গড়ায়নি। শেষ পর্যন্ত টেস্টটি ড্র হয়। ২০০৪ সালে জিম্বাবুয়ের বুলাওয়েতে স্বাগতিকদের বিপক্ষে টেস্ট ম্যাচটি ড্র করে বাংলাদেশ। সেখানেও বৃষ্টির কারণে ৩ দিনই খেলা বন্ধ ছিল।

২০০৭ সালে ভারতের বিপক্ষে চট্টগ্রামে মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ। বৃষ্টির কারণে একদিন খেলা বন্ধ ছিল। শেষ পর্যন্ত টেস্টটি ড্র হয়। ২০০৮ সালে মিরপুরে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টে মুখোমুখি হয় লাল-সবুজের জার্সিধারীরা। বৃষ্টির কারণে এই টেস্টের তিনটি দিন ভেসে যায়। এরপর ম্যাচের ভাগ্যে ড্র জুটেছিল।

২০১১ সালের ঘটনা। চট্টগ্রামে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট খেলতে মাঠে নামে বাংলাদেশ। এই টেস্টটিও ড্র হয়। কারণ, বৃষ্টিতে দুটি দিন ভেসে যায়। ২০১৩ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বৃষ্টির কারণে টেস্ট ম্যাচ ড্র করেছিল টাইগাররা।

এ বছরের ১৪ জুন ভারতের বিপক্ষে টেস্টের প্রথম দিন ৫৬ ওভার খেলা হয়। দ্বিতীয় দিন মাঠেই নামতে পারেনি খেলোয়াড়রা। তৃতীয় দিনে খেলা হয় মাত্র ৪৬.৩ ওভার। চতুর্থ দিনে হয় ৩০.১ ওভার। আর শেষ দিনে খেলা শুরু হয় মধ্যাহ্ন ভোজের বিরতির পর। পাঁচদিনে ৪৫০ ওভার খেলা হওয়ার কথা থাকলেও খেলা হয় মাত্র ১৮৪.২ ওভার। ২৬৫.৪ ওভার খেলা বৃষ্টির পেটে যায়। বেরসিক বৃষ্টির কারণে ফতুল্লা টেস্ট ড্র হয়।

গত ২৫ জুলাই দক্ষিণ আফ্রিকা বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টও বৃষ্টির কারণে ড্র করে বাংলাদেশ। তবে ম্যাচটিতে এগিয়ে ছিল বাংলাদেশই। প্রথম ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ২৪৮ রানে অলআউট করে দিয়ে বাংলাদেশ সংগ্রহ করে ৩২৬ রান। স্বাগতিকরা লিড নেয় ৭৮ রানে। দ্বিতীয় ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকা বিনা উইকেটে ৬১ রান তুলে তৃতীয় দিন শেষ করেছিল। কিন্তু শেষ দুই দিনের খেলা বৃষ্টিতে ভেসে যায়। ফলে ড্র হয় ম্যাচটি।

সবশেষ দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষেই বাংলাদশের ঢাকা টেস্ট বৃষ্টির কারণে ড্র হলো। এই টেস্টে খেলা হয়েছে শুধু প্রথম দিন। প্রথম দিনের ৮৮.১ ওভার খেলা শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল ৮ উইকেটে ২৪৬ রান। কিন্তু টানা বৃষ্টিতে পরের দিনটি পরিত্যক্ত হয়। আউটফিল্ড ভেজা থাকায় শেষ দিনের খেলাও পরিত্যক্ত ঘোষণা করেন আম্পায়াররা। ফলে আরেকটি বৃষ্টিবিঘ্নিত টেস্ট ড্র জমা পড়ে বাংলাদেশের ঝুলিতে।

বৃষ্টির কারণে ড্র হওয়া টেস্টের তালিকা:

সাল          প্রতিপক্ষ             ভেন্যু 
২০০১        জিম্বাবুয়ে             ঢাকা
২০০৪        জিম্বাবুয়ে             বুলাওয়ে
২০০৭        ভারত                 চট্টগ্রাম
২০০৮        নিউজিল্যান্ড         ঢাকা
২০১১        ওয়েস্ট ইন্ডিজ       চট্টগ্রাম
২০১৩        নিউজিল্যান্ড          ঢাকা
২০১৫        ভারত                  ফতুল্লা
২০১৫        দক্ষিণ আফ্রিকা       চট্টগ্রাম
২০১৫          দক্ষিণ আফ্রিকা       ঢাকা






মন্তব্য চালু নেই