মেইন ম্যেনু

গণজাগরণের শান্তিপূর্ণ হরতাল পালিত

বৃহস্পতিবার গণজাগরণের কফিন মিছিল

অব্যাহত লেখক-প্রকাশক হত্যা, হামলা, হামলার হুমকির প্রতিবাদে এবং মানুষের সার্বিক নিরাপত্তা ও খুনিদের বিচার দাবিতে গণজাগরণমঞ্চের ডাকা আধাবেলা হরতাল চলছে। আগামী বৃহস্পতিবার নতুন কর্মসূচি দিয়েছে গণজাগরণ মঞ্চ। ওইদিন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অভিমুখে কফিন মিছিল নিয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার।

মঙ্গলবার সকাল ১১টা আধাবেলা হরতালের শেষ মুহূর্তে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে তিনি এসব কথা জানান। এসময় স্বতস্ফূর্ত হরতাল পালনের জন্য দেশবাসীকে ধন্যবাদ জানান তিনি। সেইসঙ্গে আগামী বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অভিমুখে কফিন মিছিল ও শুক্রবার বিকাল ৩টায় সব পেশাজীবীর অংশগ্রহনে বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘সারাদেশের মানুষ নিজ নিজ উদ্যোগে এ হরতাল পালন করেছেন। হরতাল পালনের জন্য তাদের সবাইকে ধন্যবাদ।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা খবর পেয়েছি। বরিশাল ও রাজবাড়ীতে আসমাদের কর্মীদের বাঁধা দিয়েছে পুলিশ। সেই বাঁধা অতিক্রম করেই তারা হরতাল পালন করেছে। চট্রগ্রামে আমাদের একজন কর্মীকে পুলিশ আটক করেছে। আবশ্য পরে তাকে  ছেড়ে দেয়া হয়েছে। এছাড়া সারা দেশে কোন প্রকার সহিংসতা ও অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়নি।’

তিনি আরও বলেন, সাধারণ মানুষের নিরাপত্তার জন্য আমরা হরতাল ডেকেছি। শুধু ব্লগার হত্যা নয় দেশের ধর্ম প্রচারকেরাও আজ উগ্রপন্থীদের হামলার টার্গেট হয়ে দাঁড়িয়েছেন। তাদের সাথে যারই আদর্শের মিল ঘটবে না তাদেরই তারা হত্যা করবেন। এতে প্রমাণ করে, এরা বাংলাদেশকে পাকিস্থান, আফগানিস্থান ও সিরিয়ার মত একটি ধর্মীয় উগ্রবাদী রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায়। তাদের সঙ্গে আমাদের লড়াইটি হচ্ছে শুভ ও অশুভের লড়াই। এ লড়াইয়ে আমাদের জিততেই হবে।’

ব্রিফিং শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি শাহবাগ মোড় থেকে রুপসী বাংলা হোটেলের মোড় হয়ে আবার শাহাবাগে এসে শেষ হয়। দুপুর ১২টার পর শাহাবাগের সড়ক অবরোধ তুলে নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন ডা. ইমরান সরকার।






মন্তব্য চালু নেই