মেইন ম্যেনু

বেফাঁস মন্তব্যে নিজ দলের নিন্দার মুখে ট্রাম্প

আসন্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান দলীয় প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প সাম্প্রতিক প্রচারণাগুলোতে বেফাঁস কারণে সমালোচিত হয়েছেন। তবে তার এই বাতিক যে নতুন নয়, এখন তা হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছে রিপাবলিকান শিবিরই।

নারীদের নিয়ে ২০০৫ সালে করা তার বেফাঁস মন্তব্যের একটি ভিডিও শুক্রবার ফাঁস হওয়ায় দলের শীর্ষ নেতারাই এখন ট্রাম্পের সমালোচনা করছেন। ভিডিওটিতে নারীদের নিয়ে ট্রাম্পকে বিভিন্ন আপত্তিকর মন্তব্য করতে দেখা যায়।

একটি টেলিভিশন অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে আসা ট্রাম্প সেসময় বলেন, তারকা হলে একজন পুরুষ নারীদের নিয়ে যা ইচ্ছে তাই করতে পারেন। এনবিসি টিভির ‘অ্যাকসেস হলিউড’ নামের ওই অনুষ্ঠানে উপস্থাপক বিলি বুশের সঙ্গে আলাপকালে ট্রাম্পকে এই ধরনের নানা বিতর্কিত মন্তব্য করতে দেখা যায়। বিলি বুশকে ট্রাম্প এটাও বলেন, ‘বিড়ালের মতো নারীদের খপ করে ধরো। তারপর যা ইচ্ছা করো।’

শুধু তা-ই নয়, এক বিবাহিত নারীর সঙ্গে তিনি কীভাবে যৌন সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টা করেন সেখানে তারও বর্ণনা দেন। নিউইয়র্কের এই ব্যবসায়ী বলেন, সুন্দরী নারী দেখলেই তিনি নাকি চুমু খাওয়ার চেষ্টা করেন।

ভিডিওটি ফাঁস হওয়ার পর অবশ্য বরাবরের মতোই ক্ষমা চেয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। ফেসবুকে দেওয়া এক পোস্টে ট্রাম্প জানান, ১১ বছর আগের ওই অনুষ্ঠানে যা বলেছিলেন তা সম্পূর্ণ ভুল ছিল। তার পুরোনো ভিডিও টেপ ফাঁস করা অনেক গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক ইস্যূকে আড়াল করার কৌশল বলেও জানান তিনি। বর্তমানে তিনি যে ভালো মানুষ, বার্তায় সেটিও জানিয়েছেন।

শুক্রবার ভিডিও টেপটি ফাঁস হওয়ার পর অবশ্য অন্য সুর ছিল ট্রাম্পের কণ্ঠে। তখন তিনি একে লকার রুমের পরিহাস হিসেবে ঠাট্টা করেন। সঙ্গে এটাও বলেন, বিল ক্লিনটন তার চাইতেও খারাপ মন্তব্য করতেন।

ফেসবুকে ক্ষমা চাইলেও অবশ্য ক্লিনটন প্রসঙ্গে একই মন্তব্য করেছেন এই রিপাবলিকান প্রার্থী। সেখানেও লিখেছেন, সেসময় আমি বোকার মতো কথা বলেছি। তবে শুধু মুখের কথা আর কাজের মধ্যে বিস্তর পার্থক্য রয়েছে। বিল ক্লিনটন নারীদের হয়রানি করতেন দাবি করে ট্রাম্প জানান, সেই অপকর্মগুলো লজ্জায় হিলারি আড়াল করতেন।

এদিকে, যে অনুষ্ঠানে ট্রাম্প এসব মন্তব্য করেন সেই অ্যাকসেস হলিউড জানিয়েছে, একটি প্রতিবেদনের জন্য ওই ভিডিও টেপটি আর্কাইভ থেকে তারা খুঁজে বের করেন। তবে সেখানে ট্রাম্প যেসব কথা বলেছেন তাতে বিব্রত উপস্থাপক বিলি বুশও।

ভিডিও ফাঁসের পর এই সপ্তাহে ট্রাম্পের নির্বাচনী সমাবেশের আমন্ত্রণ বাতিল করেছেন হাউস স্পিকার পল রায়ান। এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি জানিয়েছেন, ট্রাম্পের এমন মন্তব্য শুনে তিনি অসুস্থবোধ করছেন। ট্রাম্প নিজ গুনে এই সমালোচনাগুলো কাটিয়ে উঠবেন বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন রায়ান।

এদিকে ভিডিও ফাঁসের পর ট্রাম্পের বক্তব্য ভয়ংকর বলে প্রতিক্রিয়ায় জানিয়েছেন প্রতিদ্বন্দ্বী ডেমোক্রেট দলীয় প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন। টুইটার বার্তায় হিলারি বলেন, ‘এমন ব্যক্তিকে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট করা হবে বিপদজনক।’






মন্তব্য চালু নেই