মেইন ম্যেনু

বেরোবিতে দাবির মুখে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন বঙ্গবন্ধু হল প্রশাসনের

এইচ.এম নুর আলম, বেরোবি প্রতিনিধি : রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি)বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে সীট ভাড়া বাবদ তিন মাসের অগ্রিম ভাড়া আদায়ে শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেছে হল প্রশাসন। নতুন নিয়মে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য ২টি হলের মতোই এই হলেও প্রতি মাসের ভাড়া চলতি মাসেই আদায় করা হবে বলে আজ জানিয়েছেন হল প্রভোস্ট কমলেশ চন্দ্র রায়।

একই সাথে গত এপ্রিল থেকে আগামী জুন পর্যন্ত তিন মাসের অগ্রিম ভাড়া অনাদায়ে মোট ৫০ টাকা জরিমানা দিতে হবে। প্রতি মাসের নির্দিষ্ট সময়ে ভাড়া আদায় আগামী জুলাই থেকে কার্যকর করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এর আগে হলের সীট ভাড়া বাবদ তিন মাসের অগ্রিম ভাড়া অনাদায়ে প্রতিমাসের ৫০ টাকা করে জরিমানা ধার্য করায় অতিরিক্ত জরিমানা বাতিলের দাবিতে গত ২৮ এপ্রিল হল প্রভোস্ট বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করে হলে অবস্থানরত শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীরা জানায়, হল চালুর পর থেকে প্রতি মাসে ২৫০ টাকা করে প্রতি তিন মাস পর প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে তিন মাসের অগ্রীম মোট ৭৫০ টাকা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পরিশোধ করতে বলা হয়। হল চালুর প্রথম ধাপে গত জানুয়ারি থেকে মার্চ মাসের ভাড়া জানুয়ারি মাসেই আদায় করে হল প্রশাসন। ২য় ধাপে চলতি এপ্রিল থেকে আগামী জুন মাসের অগ্রিম ভাড়া বাবদ ৭৫০ টাকা আদায়ের লক্ষ্যে গত ১৭ এপ্রিল পর্যন্ত সময় বেধে দেয়া হয়। কিন্তু ওই নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে হলের বেশিরভাগ শিক্ষার্থীই ভাড়া পরিশোধ করতে ব্যর্থ হয়। ফলে প্রতি মাসে ৫০ টাকা হারে অতিরিক্ত ১৫০ টাকা জরিমানাসহ মোট ৯০০ টাকা পরিশোধ করতে গত ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত আবারও সময় বেঁধে দেয় হল প্রশাসন।

এ বিষয়ে শিক্ষার্থীরা অভিযোগ তুলে জানান, তিন মাসের ভাড়া বাবদ অগ্রিম ভাড়া নেয়ার কোন যৌক্তিকতা আসেনা। রংপুরে বেসরকারী ছাত্রাবাস এমনকি বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্য দুটি হলে এমন নিয়ম নেই। তারা চলতি মাসের ভাড়া চলতি মাসের যেকোন দিন পরিশোধ করতে পারে। অথচ এই হলে অবস্থান করতে অগ্রীম তিন মাসের টাকা আগে পরিশোধ করতে হচ্ছে। তাঁর সাথে কেউ দিতে না পারলে অগ্রিম ভাড়ায় জরিমানাও করা হয়েছে। তাই অগ্রিম ভাড়া আদায়ের সিদ্ধান্ত বাতিল করতে শিক্ষার্থীরা দাবি জানিয়ে স্মারকলিপি প্রদানের পর সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে নতুন নিয়মে ভাড়া আদায়ের বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে হল প্রশাসন।

বিষয়টি জানতে চাইলে বঙ্গবন্ধু হলের প্রভোস্ট কমলেশ চন্দ্র রায় বলেন, অগ্রিম ভাড়া প্রদানে শিক্ষার্থীরা আপত্তি করায় তাদের সুবিধার্থে প্রত্যেক মাসের ভাড়া প্রত্যেক মাসেই আদায়ের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বিষয়টি শীঘ্রই নোটিশের মাধ্যমে জানানো হবে।






মন্তব্য চালু নেই