মেইন ম্যেনু

বেরোবিতে বাঁধন এর ২য় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন

রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবি) জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে উদযাপিত হলো স্বেচ্ছায় রক্তদাতাদের সংগঠন ‘বাঁধন’ এর ২য় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। আজ বৃহস্পতিবার এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা এবং কেক কাটার মধ্য দিয়ে সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শুভ উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজনেস অনুষদের ডিন ড. মো. মতিউর রহমান।

পরে এক আলোচনা সভা এবং মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।এর আগে বিশ্ববিদ্যালয় বাঁধন ইউনিটের উদ্যোগে ফ্রি ব্লাড গ্রুপ নির্ণয়ের আয়োজন করা হয়।

আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞানের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোঃ গাজী মাজহারুল আনোয়ার,অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক মোঃ মহিউদ্দিন, লোক প্রশাসন বিভাগের প্রভাষক যুবায়ের ইবনে তাহের, পরিসংখ্যান বিভাগের প্রভাষক মোঃ সিদ্দিকুর রহমান, রংপুর মেডিকেল কলেজের চিকিৎসক ডা. মোঃ শহীদুল ইসলাম এবং ডা.নুরুল ইসলাম, বাঁধনের উপদেষ্ঠা মন্ডলীর সদস্যবৃন্দ, বাঁধনের কেন্দ্রীয় পরিষদের সদস্যবৃন্দ, বাঁধন এর লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, দিনাজপুর সহ বিভিন্ন কলেজ থেকে আসা কর্মীসহ বিশ্ববিদ্যালয় বাঁধন ইউনিটের অন্যান্য সদস্যবৃন্দ।

সভায় বক্তারা বাঁধন এর ২য় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর শুভ কামনা করেন। বক্তারা তাঁদের বক্তৃতায় বাঁধন এর একটি নিজস্ব ব্লাড ব্যাংক স্থাপন করার কথা বলেন যেখানে যে কোনো সময় রক্তের অভাবে মুমূর্ষু রোগিরা অনায়াসে রক্ত পেতে পারেন। রক্ত প্রদান এবং এ ক্ষেত্রে সহজে রক্তদানকারিদের রক্তপ্রদানের একটি ডাটাবেজ (তালিকা) ও তৈরি করার আহ্বান জানান বক্তারা। এছাড়াও বেরোবি বাঁধন এর একটি নিজস্ব কক্ষ বরাদ্দের আহ্বান জানানো হয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নিকট।

বাঁধনের সাধারণ সম্পাদক মানস রায় সংগঠনের কার্যক্রম তুলে ধরে বলেন, ‘২০১৩ সালের ৯ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে ‘একের রক্ত অন্যের জীবন, রক্তই হোক আত্মার বাঁধন’এই শ্লোগান নিয়ে যাত্রা শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় বাঁধন। পরে এটি ইউনিটে রুপান্তরিত হয়। সংগঠনটি এ পর্যন্ত নিজ উদ্যোগে ৩ হাজার ২০ জন রোগিকে রক্ত প্রদানের ব্যবস্থা করেছে।’

স্বেচ্ছায় রক্তদানকে সামাজিক আন্দোলন হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে দেশের ২৮ টি জেলায় মোট ১৫ টি পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় ও ১০৭ টি ¯তকোত্তর কলেজে বাঁধন এর মোট ১০০টি ইউনিট রয়েছে । এ সব ইউনিটের মধ্য দিয়েই ‘বাঁধন’এর সকল কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে বলে সভায় বাঁধনের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

উল্লেখ্য যে, এর আগে দেশব্যাপী রক্তপ্রদান, রক্তের গ্রুপ নির্ণয়, মুমূর্ষু রোগিদের বিনামূল্যে রক্ত প্রদান সহ অন্যান্য পদক্ষেপ বাস্তবায়নের লক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৯৯৭ সালের ২৪ অক্টোবর বাঁধনে এর অগ্রযাত্রা শুরু হয়।






মন্তব্য চালু নেই