মেইন ম্যেনু

বেশি ঘুমালে শরীরে বাঁধবে রোগের বাসা

ঘুমের মতো প্রিয় আর কী হতে পারে? মাঝে মাঝে মনে হয়, সত্যিই যদি রোজ সকালে ঘুম থেকে উঠে অফিস যেতে না হত, বা পড়তে বসার জন্য সকালের আরামের ঘুম থেকে জোর করে মা উঠিয়ে না দিতেন তা হলে কতই না ভাল হত। কিন্তু, জানেন কি প্রয়োজনের থেকে বেশি ঘুম সর্বনাশ ডেকে আনতে পারে আপনার জীবনে? এক জন সুস্থ প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের প্রতি দিন ৭-৮ ঘণ্টা ঘুম দরকার। কিন্তু, আপনার যদি দিনের মধ্যে ১০-১২ ঘণ্টা ঘুমের অভ্যাস থাকে তা হলে এখনই সাবধান হন। গ্যালারি থেকে জেনে নিন চিকিত্সকেদের একাংশ কী বলছেন বেশি ঘুমে কী কী রোগ বাসা বাঁধতে পারে আপনার শরীরে।

মোটামোটা হয়ে যাওয়া: বেশি ঘুমানোর অভ্যাস থাকলে বাড়তে পারে ওজন। দেখা গিয়েছে যাঁরা রাতে ৭-৮ ঘণ্টা ঘুমান তাঁদের চেয়ে যাঁরা ৯-১০ ঘণ্টা ঘুমান তাঁদের ওজন বাড়ার হার ২১ শতাংশ বেশি।

ডায়াবেটিস

 

ডায়াবেটিস: অতিরিক্ত ঘুমে বাড়তে পারে ডায়াবেটিসের মতো রোগের সম্ভাবনাও।

 

মাথার যন্ত্রণামাথার যন্ত্রণা: খুব কম ঘুমালে যেমন মাথার যন্ত্রণা হয় তেমনই অধিক ঘুমেও মাথায় যন্ত্রণা হতে পারে।

ব্যাক-পেইনব্যাক-পেইন: খুব বেশি ক্ষণ একটানা ঘুমালে পিঠ, শিড়দাঁড়া, কোমরে ব্যথা হতে পারে। চিকিৎসকরা বলেন, সারা দিনে অন্তত কিছুটা সময় নূন্যতম শরীরচর্চা বা বিভিন্ন কাজকর্ম করার দরকার রয়েছে।

অবসাদঅবসাদ: বেশি ঘুমালে আসতে পারে অবসাদও। দেখা গিয়েছে যাঁরা বেশি ঘুমকাতুরে তাঁদের মধ্যে ১৫ শতাংশ মানুষ অবসাদগ্রস্ত।

হৃদ্‌পিণ্ডের সমস্যাহৃদ্‌পিণ্ডের সমস্যা: নার্সেস হেল্থ স্টাডি ৭২,০০০ হাজার মহিলার ওপর একটি সমীক্ষা চালায়। এই সমীক্ষায় দেখা যায়, যে সমস্ত মহিলারা প্রতিদিন রাতে ১১ ঘণ্টার কাছাকাছি ঘুমান তাঁদের মধ্যে ৩৮ শতাংশ মহিলা হৃদ্‌যন্ত্রের নানা সমস্যায় ভোগেন।

স্টোকস্টোক: প্রয়োজনের অতিরিক্ত ঘুমে বাড়তে পারে স্ট্রোকের সম্ভাবনাও।

মৃত্যুমৃত্যু: শুনতে অদ্ভুত লাগলেও এটাই ঠিক যে অতিরিক্ত ঘুমে কমে আয়ুও। দেখা গিয়েছে, যে মানুষরা প্রতি রাতে ৯ ঘণ্টার বেশি ঘুমান তাঁদের মৃত্যুর হার বেশি।

কাজে অনীহাকাজে অনীহা: জানেন কি বেশি ঘুমে যদি অভ্যস্ত হয়ে যান আপনি তা হলে অলসতা গ্রাস করতে পারে। দেখা দিতে পারে কাজকর্মে চরম অনিহাও।

বুদ্ধি হীনতাবুদ্ধি হীনতা: খুব বেশি ঘুমালে একটা সময় পরে দেখা দিতে পারে বুদ্ধিহীনতাও।






মন্তব্য চালু নেই