মেইন ম্যেনু

বেশি প্রশ্ন করলেই আত্মহত্যা করব, মাধ্যমিকে প্রথম হওয়া ছাত্রের হুমকি

ভারতের বিহার বোর্ডে ভালো রেজাল্টকারীদের ঘীরে বিতর্ক আরো জমে উঠলো। বিশেষ পরীক্ষায় অযোগ্য বলে প্রমাণিত হয়েছে বিজ্ঞান বিভাগের দুই সেরা রেজাল্টকারী সৌরভ শ্রেষ্ঠ ও রাহুল কুমার৷ তাদের রেজাল্ট বাতিল করা হয়েছে৷ শনিবার সৌরভ ও রাহুলসহ সেরা স্থানধিকারী আরো ১৩ জনের বিশেষ পরীক্ষা নেয়া হয়৷ তবে সেই তালিকা থেকে বাদ পড়েন কলা বিভাগের প্রথম হওয়া রুবি রায়৷ অসুস্থ থাকায় এক সপ্তাহ পরে সে বিশেষ পরীক্ষা দেবে৷ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে বিহার বোর্ড জানিয়েছে, বিশেষ পরীক্ষায নেয়ার পর তাদের ১৩ জনের মধ্যে ১১ জন পাশ করেছে৷

পরীক্ষার সময় তাদের একজনকে প্রশ্ন করা হলে বলেন, ‘বেশি প্রশ্ন করবেন না, তা হলে এখানেই আত্মহত্যা করব’। ভারতের বিহার রাজ্যের উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার শীর্ষ স্থানাধিকারী সৌরভ শ্রেষ্ঠের এই কথায় রীতিমতো ঘাবড়ে যান পরীক্ষকেরা। বেশি কিছু প্রশ্ন না করেই তাকে বাইরে পাঠিয়ে দেন তারা। রাজ্যের উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার শীর্ষ স্থানাধিকারীদের নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় শিক্ষা দফতর তাদের দ্বিতীয় বার পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। পরীক্ষা দিতে আসেননি কলা বিভাগের প্রথম স্থানাধিকারী রুবি রাই। যিনি কি না বলেছেন, ‘পলিটিক্যাল সায়েন্স বা রাষ্ট্রবিজ্ঞান রান্নার কাজে লাগে’!

বিজ্ঞান বিভাগের প্রথম স্থানাধিকারী সৌরভ শ্রেষ্ঠ পরীক্ষা দিতে আসেন। ১৫ জনের একটি বিশেষজ্ঞ দল পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা নেয়ার জন্য উপস্থিত ছিলেন। পরীক্ষায় অবজেক্টিভ ও সাবজেক্টিভ দু’ধরনেরই প্রশ্ন ছিল। লেখা পরীক্ষার পর এক এক করে পরীক্ষার্থীদের ইন্টারভিউয়ের জন্য ডাকা হয়। সৌরভও হাজির হন।

হলে ঢুকেই পরীক্ষকদের বলেন, “গত কয়েক দিন ধরে মানসিক দিক থেকে খুব চাপে রয়েছেন। উত্তর দেয়ার অবস্থায় নেই।” এই পর্যন্ত ঠিক ছিল। কিন্তু এর পরেই ঘরে থাকা সব পরীক্ষককে চমকে দিয়ে বলেন, “এমন কিছু প্রশ্ন করবেন না যাতে আত্মহত্যা করতে বাধ্য হই।” তার এই কথা শুনেই পরীক্ষকেরা ঘাবড়ে যান। তাকে পানি পান করিয়ে বাইরে পাঠিয়ে দেন।

১৫ জনের বিশেষজ্ঞ পরীক্ষকদের মধ্যে ১২ জন ছিলেন সাবজেক্ট এক্সপার্ট এবং তিনজন ছিলেন হ্যান্ডরাইটিং এক্সপার্ট। পরীক্ষা শেষে বিশেষজ্ঞ দলটি জানিয়েছে, বেশির ভাগ ছাত্রছাত্রীই সঠিক উত্তর দিয়েছে। বিশেষজ্ঞ দলের সবুজ সঙ্কেতের পর উচ্চমাধ্যমিক বোর্ডের অধ্যক্ষ লালকেশ্বর প্রসাদ সিংহ বলেন, “ভালো লেখক ভালো বক্তা হতে পারেন না।”

শীর্ষ স্থানাধিকারীদের পাশে দাঁড়িয়ে তিনি আরো বলেন, “টিভি চ্যানেলের ক্যামেরা দেখে নার্ভাস হয়ে গিয়ে ছেলেমেয়েরা ভুল বলে ফেলেছে।”

রুবি রাই তা হলে কেন পরীক্ষা দিতে এলেন না? এই প্রশ্ন করাতে লালকেশ্বরবাবু বলেন, “শরীর খারাপের জন্য সে পরীক্ষা দিতে পারেনি।”

উচ্চমাধ্যমিকের ফল বেরনোর পর কলা বিভাগের প্রথম স্থানাধিকারী রুবি রাইকে পলিটিক্যাল সায়েন্স কী তা নিয়ে প্রশ্ন করা হয়। জবাবে রুবি বলেন, “এটি একটি রান্না শেখানোর বিষয়।” এ ছাড়াও তিনি পলিটিক্যাল সায়েন্সকে প্রডিক্যাল সায়েন্স বলেন।

অন্য দিকে, বিজ্ঞান বিভাগের প্রথম স্থানাধিকারী সৌরভ শ্রেষ্ঠকে বিজ্ঞান সংক্রান্ত সাধারণ মানের প্রশ্ন করায় যে উত্তর দেন, তাতে গোটা দেশে হইচই পড়ে যায়। প্রশ্ন ওঠে কী ভাবে এরা বোর্ডের পরীক্ষায় প্রথম হয়েছেন। তার পরেই নড়েচড়ে বসে রাজ্য শিক্ষা দফতর। ফের পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।






মন্তব্য চালু নেই