মেইন ম্যেনু

বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ে কর আরোপ প্রশংসার দাবিদার : ছাত্রলীগ

বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উপর সরকারের ৭ দশমিক ৫ শতাংশ কর আরোপের বিষয়টি নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবিদার বলে মন্তব্য করেছে চট্টগ্রাম নগর ছাত্রলীগের নেতারা।

রোববার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব চত্তরে আয়োজিত এক মানবন্ধনে এ মন্তব্য করেন ছাত্রলীগের নেতারা।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ‘সরকারের প্রস্তাবিত বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উপর সরকারের ৭.৫ শতাংশ কর আরোপের বিষয়টি নিসন্দেহে প্রশাংসার দাবিদার। শিক্ষার বিস্তারের অজুহাতে বাংলাদেশের বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বর্তমানে এক একটি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। প্রতিযোগিতামূলকভাবে তারা শিক্ষাকে বাণিজ্যিক পণ্যের মত ব্যবহার করছে। আর তাদের এই লাগাম টেনে ধরতে সরকারের কর আরোপের উদ্যোগটি অপপ্রচারের মাধ্যমে নস্যাৎ করার সূক্ষ ষড়যন্ত্র বর্তমানে আমরা দেখতে পাচ্ছি।’

বক্তারা বলেন, ‘নামসর্বস্ব কিছু ছাত্র সংগঠন এরই মধ্যে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ কর সাধারণ শিক্ষার্থীদের উপর সরকার আরোপ করেছে এই মর্মে অপপ্রচার, মিথ্যাচার ও উস্কানি দিয়ে যাচ্ছে। সরকারের চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের গেজেট প্রকাশ হওয়ার আগেই এমন একটি মিথ্যা অপপ্রচার অবশ্যই সরকারের বিরুদ্ধে দূরভিসন্ধি। বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বর্তমান কোন প্রকার আর্থিক নীতিমালার আওতায় না থাকায় অযৌক্তিকভাকে ছাত্রদের নিকট হতে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করছে। সুতরাং সরকারের প্রস্তাবিত এই সিদ্ধান্তের প্রতি ছাত্রসমাজের পূর্ণ সমর্থন রয়েছে।’

ছাত্রসমাজের সকল যৌক্তিক দাবির হাতিয়ার বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। দেশের ১০৩টি বেরসকারী বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজে বর্তমানে ৫ লক্ষ শিক্ষার্থী অধ্যয়ন করছে। করের অজুহাতে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে কেউ যাতে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের সুযোগ গ্রহণ করতে না পারে সে লক্ষ্যে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একটি নির্দিষ্ট ‘ভর্তি ফি’ ও ‘ভর্তি কাঠামো’ প্রণয়নের দাবি জানান নগর ছাত্রলীগের নেতারা।

চট্টগ্রাম নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু’র সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি’র সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন- নগর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি একরামুল হক রাসেল, মঈনুল হক শিমুল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীর, রনি মীর্জা, অমিতাভ চৌধুরী বাবু, সাংগঠনিক সম্পাদক খোরশেদ আলম মানিক, উপ-সম্পাদক আবদুল হালিম মিতু, রাশেদুল ইসলাম, সনেট চক্রবর্ত্তী, সহ-সম্পাদক সাব্বির সাকিব, কায়সার মাহমুদ রাজু, আকরাম হোসেন, সদস্য কামরুল হুদা পাভেল, ফাহাদ আনিস, ফয়সাল অভি, এম.ই.এস কলেজ ছাত্রলীগ নেতা সৈয়দ আনিসুর রহমান, তোফায়েল আহমেদ মামুন, শেখ মো: শাকিল, সুলতান মাহমুদ ফয়সাল, আনসারুল্লাহ সৌরভ, নুরুন্নবী শাহেদ, শাহাদাত হোসেন পারভেজ, চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগ নেতা মাহমুদুল করিম প্রমুখ।






মন্তব্য চালু নেই