মেইন ম্যেনু

বেয়াদপ স্বামীকে শায়েস্তা করতে দাবাং রূপে বর্ধমানের তরুণ!

মঙ্গলবার বর্ধমানের সরাইটিকর গ্রামে নির্মল বাংলা অভিযানে বেরিয়েছিলেন বিডিও দেবদুলাল বিশ্বাস। সেখানে গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা বলার সময় চোলাই মদের ঠেক নিয়ে বিডিও-র কাছে অভিযোগ জানান অনেকে।

গিয়েছিলেন গ্রামবাসীদের পরিষ্কার, পরিচ্ছন্নতার শিক্ষা দিতে। তার ফাঁকেই বেয়াদপ স্বামীকে স্বভাব পাল্টানোর শিক্ষা দিয়ে এলেন বিডিও। শুনতে সিনেমার চিত্রনাট্যের মতো মনে হলেও যা ঘোর বাস্তব। ঘটনাস্থল বর্ধমানের সরাইটিকর গ্রাম।

মঙ্গলবার বর্ধমানের সরাইটিকর গ্রামে নির্মল বাংলা অভিযানে বেরিয়েছিলেন বিডিও দেবদুলাল বিশ্বাস। সেখানে গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা বলার সময় চোলাই মদের ঠেক নিয়ে বিডিও-র কাছে অভিযোগ জানান অনেকে। এরপর গ্রামবাসীদের নিয়ে গিয়ে চোলাই মদের ঠেকে অভিযান চালান দেবদুলালবাবু। মদের ঠেক ভেঙ্গে দেন তিনি। তখনই এক মহিলা তাঁর স্বামীর বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ করেন বিডিও-র কাছে। ওই মহিলা জানান, তাঁর স্বামী নিয়মিত মদ খেয়ে বাড়িতে অশান্তি করে। অভিযুক্ত ব্যক্তি এলাকায় চোলাই মদও বিক্রি করেন বলে অভিযোগ।

এরপরে ওই মহিলা তাঁর স্বামীকে বিডিও-র সামনে নিয়ে এলে শাস্তি হিসেবে প্রথমে ওই ব্যাক্তিকে সজোরে চড় মারেন দেবদুলালবাবু। তারপরে কান ধরে ওঠবোস করিয়ে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে শাস্তি দেন। গ্রামবাসীদের সামনে এমন শাস্তি পেয়ে ততক্ষণে স্ত্রীর উপরে নির্যাতন চালানো স্বামীর যাবতীয় দাপট উধাও।

বিডিও দেবদুলাল বিশ্বাসকে সে প্রতিশ্রুতি দেয়, আর কোনও দিন মদ বিক্রি করবে না, স্ত্রীর উপরেও কোনওরকম নির্যাতন চালাবে না। আইনগতভাবে কারও গায়ে এভাবে হাত দেওয়া যায় না। কিন্তু ততক্ষণাৎ শিক্ষা দেওয়ার জন্য বর্ধমানের এই তরুণ বিডিও যা করলেন, তাঁকে সমর্থন না করেও উপায় আছে কি?






মন্তব্য চালু নেই