মেইন ম্যেনু

ব্যর্থ সাকিব, ব্যর্থ কলকাতাও

আইপিএলে কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে প্রথম দুই ম্যাচে দলে থাকলেও একাদশে জায়গা হয়নি সাকিব আল হাসানের। তৃতীয় ম্যাচে একাদশে সুযোগ পেলেও ব্যাট করতে হয়নি বাংলাদেশি এই অলরাউন্ডারকে। নিজের দ্বিতীয় ম্যাচে রাইডার্সের হয়ে ১৫ বলে মাত্র ১১ রান করে আউট হন তিনি। পরের ম্যাচে ৯ বলে করেন ৩ রান।

গতকাল ৬ রানেই থেমে যায় তার ইনিংস। তার ব্যর্থতার দিনে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিপক্ষে ৬ উইকেটে হেরেছে কলকাতা নাইট রাইডার্স।

বৃহস্পতিবার রাতে মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে টসে হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে কলকাতা ৫ উইকেটে ১৭৪ রান করে। জবাবে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ১২ বল ও ৬ উইকেট হাতে রেখে জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে যায়।

১৭৫ রানে জয়ের জন্য ব্যাট করতে নেমে মুম্বাইয়ের হয়ে ৪৯ বলে সর্বোচ্চ ৬৮ রানে অপরাজিত থাকেন অধিনায়ক রোহিত শর্মা। তবে সবচেয়ে বিধ্বংসী ইনিংসটি উপহার দিয়েছেন কাইরন পোলার্ড। মাত্র ১৭ বলে ৫১ রান করেন ক্যারিবীয় দানব। যার মধ্যে ছিল ছয়টি ছক্কা ও দুটি চারের মার। ১৮তম ওভারে টানা তিন ছক্কা হাঁকিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেন পোলার্ড। এ ছাড়া রাইডু করেন ২০ বলে ৩২ রান।

কলকাতার হয়ে ৪ ওভারে ২২ রানে সুনীল নারিন দুটি, ৩০ রানে সাকিব একটি ও দুই ওভারে ১৯ রানে একটি উইকেট লাভ করেন উমেশ যাদব। ম্যাচ সেরা হন রোহিত শর্মা।

এর আগে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে কলকাতার হয়ে উদ্বোধনী জুটিতে রবিন উথাপ্পা ও গৌতম গম্ভীরের শুরুটা ছিল অসাধারণ। এই জুটিতে তারা করেন ৬৯ রান। অষ্টম ওভারে উথাপ্পা মাঠ থেকে বিদায় নেওয়ার আগে মাত্র ২০ বলে ৩৬ রান করেন।

ওয়ান ডাউনে ক্রিজে যান সাকিব আল হাসান। কিন্তু ব্যাট হাতে জ্বলে উঠতে ব্যর্থ সাকিব। ৪ বলে মাত্র ৬ রান করে হার্দিক পান্ডিয়ার বলে উইকেটরক্ষক পাটেলের তালুবন্দী হন বিশ্বের অন্যতম সেরা এ অলরাউন্ডার।

সাকিবের বিদায়ের পর সুরিয়া কুমার যাদবকে নিয়ে রানের চাকা সচল রাখেন গম্ভীর। তবে হাফ সেঞ্চুরির পর বিদায় নেন কলকাতার অধিনায়ক। মাঠ ছাড়ার আগে ৪৫ বলে ছয়টি চার ও একটি ছক্কায় ৫৯ রান করেন গম্ভীর। এছাড়া সুরিয়া কুমার ২১ ও আন্দ্রে রাসেল ২২ রান স্কোরবোর্ডে যোগ করেন। শেষ দিকে ইউসুফ পাঠানের ৮ বলে ১৯ রানে ভর করে কলকাতা ১৭৪ রানের পুঁজি পায়।

মুম্বাইর হয়ে টিম সাউদি সর্বোচ্চ দুটি উইকেট নেন। একটি করে উইকেট পান ম্যাক্লেনাঘান, হরভজন ও হার্দিক পান্ডিয়া।

আইপিএলের চলতি আসরে ছয় ম্যাচে কলকাতার এটি দ্বিতীয় হার। অন্যদিকে আট ম্যাচে মুম্বাইর এটি চতুর্থ জয়। হারলেও আট পয়েন্ট নিয়ে তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে কলকাতা। অন্যদিকে আট পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স।






মন্তব্য চালু নেই