মেইন ম্যেনু

ব্যস্ত সড়কে কার রেসিং, প্রাণ গেল শিশুর, এরা কারা?

ঢাকার গুলশানে দুই বন্ধুর কার রেসের বলি হয়েছে একটি শিশু। তবে শিশুটির নাম পরিচয় কিছুই প্রকাশ করছে না পুলিশ। আর কারা এই ঘটনার জন্য দায়ী তা এখনও পুলিশ জানে না বলে দাবি করেছে। তবে গাড়িটি জব্দ করেছে তারা। একাধিক সূত্র বলছে- একজন প্রভাবশালী সাবেক সংসদ সদস্যের ভাগ্নে এ ঘটনায় জড়িত থাকায় পুলিশ সবকিছু ধামাচাপা দিতে চাইছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সোমবার বিকেল পৌনে চারটার দিকে ঢাকার গুলশানের ৭৪নং সড়কে দুই বন্ধুর কার রেসিং-এর সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেললে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এতে রিকশায় মায়ের কোলে থাকা আনুমানিক তিন-চার বছরের এক শিশু নিহত হয়। ঘটনা গতকাল সোমবার পৌনে চারটার হলেও একেবারেই জনসম্মুখে আসেনি।এখন পর্যন্ত গাড়ির মালিক কে সেটাও জানাচ্ছে না পুলিশ।

3 car race udisa

আমাদের মেডিক্যাল প্রতিনিধি জানান, ঘটনা জানার পর তারা শিশুটির লাশের অপেক্ষা করলেও পরে তাদের জানানো হয় ময়নাতদন্ত ছাড়াই এই লাশ হস্তান্তর হয়ে গেছে। গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম গাড়ির আঘাতে শিশুর মৃত্যুর ঘটনা সঠিক জানিয়ে বলেন, অভিভাবকরা ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ নিতে চাওয়ায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দুর্ঘটনার যেসব ছবি গতকাল থেকে ঘুরছে সেটাতে দুর্ঘটনা ঘটানো গাড়ির নম্বর ঢাকা মেট্রো ঘ ১১৮৯৭৬। ছবির গাড়ির নম্বর ও পুলিশের জব্দ করা গাড়ির নম্বর এক বলে নিশ্চিত করেছে গুলশান থানা।

একাধিক সূত্রের দাবি, শিশুটিকে চাপা দেওয়া গাড়ি চালকের সিটে ছিলেন ফারিজ রহমান নামে ১৬ বছর বয়সী এক কিশোর। ছবিতে যে Toyota Fortuner SUV টি দেখা যাচ্ছে সেটি চালাচ্ছিলেন তিনি। দুর্ঘটনার পর গাড়িটি আটকাতে পুলিশ সক্ষম হলেও অন্য গাড়িটি পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছে। ঘটনার পর থেকে ফারিজের ফেসবুক পেজ ডিএকটিভ পাওয়া যাচ্ছে।

তবে গাড়িটির মালিক কে সেটি জানতে চাইলে সূত্র বলছে বিআরটিএ’র কাগজে শুধু চেসিস নম্বর আছে (এমআরওওয়াইএক্স ৫৯৯০০০১১৮৯৭), মালিকের নাম নেই। তবে পুলিশেরই এক সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ফারিজ আওয়ামী লীগের সাবেক প্রভাবশালী ও বহুল আলোচিত সংসদ সদস্যের ভাগ্নে হওয়ায় কেউই তেমন আগ্রহ নিয়ে বিষয়টি তদন্ত করছে না।

2 car race udisa

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন পোস্টে ফারিজ রহমান-এর বন্ধুদের বরাত দিয়ে বলা হয়, গাড়ি চালাতে চালাতে মোবাইলে তাদের রেসিং-এর ভিডিও করছিলো ফারিজ এবং দুর্ঘটনার একটু আগে তার সেলফি তুলে ফটোমেসেজিং স্ন্যাপচ্যাটে দিতে দেখা গেছে। ফারিজের ফেসবুক পেজে তার পরিচয় হিসেবে বিএমডব্লিউ-এর এমডি এবং মেম্বার অব পার্লামেন্ট লেখাও দেখা গেছে। ঘটনার ৩০ মিনিট আগে সে গাড়ি চালানো অবস্থায় সেলফি দিয়েছে বলে বন্ধুসূত্রে জানা গেছে।

গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম বলেন, গতকাল বিকেল পৌনে চারটার দিকে এই ঘটনা ঘটে। আমরা এই গাড়ি আটক করেছি। গাড়ির মালিককে আটকের চেষ্টা চলছে। এ বিষয়ে পুলিশ একটি মামলা করেছে। তিনি বলেন, গাড়িটি রিকশাকে ধাক্কা দেওয়ায় তা উল্টে গেলে কোলে থাকা শিশুটি মারা যায়, এতে আহত হয় মোট দুই রিকশার চারজন যাত্রী।

gulshan-2-suv-fareez-wb

সোমবার বিকেলের ঘটনা হলেও বিষয়টি গণমাধ্যমে না এলেও আজ মঙ্গলবার সকাল থেকে একাধিক ছবি ঘুরতে থাকে ফেসবুকে। সেখানে ছবির অ্যালবাম শেয়ার করা কারওর সঙ্গেই কথা বলতে চেয়েও কথা বলা যায়নি।

গুলশান এলাকায় বসবাস করেন এমন একজন মোহাম্মদ আমিন বলেন, গুলশানের রাস্তায় এটা খুব সাধারণ ঘটনা।অনেকের গাড়ি চালানো দেখলেই মনে হয় যে, সেই গাড়ি আর তার ভেতরের মানুষ ছাড়া রাস্তায় সব জন্তু-জানোয়ার। তারা আবাসিক এলাকার ভেতর দিয়ে প্রতিনিয়ত এমনকি গভীর রাতে রেসিং করে সেটা সবার জানা। আর এমন একটা ঘটনা একেবারেই ধামাচাপা দেওয়া হলো। ফেসবুকে ছবি ঘুরে বেড়াচ্ছে কিন্তু কোনও নিউজ হচ্ছে না। এটা খুবই হতাশার।বাংলা ট্রিবিউন






মন্তব্য চালু নেই