মেইন ম্যেনু

ব্রাজিলের গম কুষ্টিয়ায় ঢুকতে দেননি এমপি

ব্রাজিল থেকে আমদানি করা গমের ৫০০ মেট্রিক টন কুষ্টিয়ার কুমারখালী খাদ্য গুদামে রাখতে দেননি স্থানীয় সংসদ সদস্য আব্দুর রউফ।

শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় কুমারখালী উপজেলা খাদ্য গুদামে ১৪টি ট্রাকে ওই গম এলে স্থানীয়দের নিয়ে তা আটকে দেন কুষ্টিয়া-৪ (কুমারখালী-খোকসা) আসনে সরকারদলীয় এই সংসদ সদস্য।

এই গম নিয়ে দেশজুড়ে তোলপাড় চলছে; যদিও খাদ্যমন্ত্রীর দাবি, এই গম খাওয়ার উপযোগী।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, খুলনা বিভাগীয় খাদ্য গুদাম থেকে আসা ১৪ ট্রাক গম কুমারখালী খাদ্য গুদামে সকালে নামানোর প্রস্তুতি শুরু হয়। এমপির নেতৃত্বে জনতার প্রতিরোধে গম গুদামজাত করা বন্ধ হয়ে যায়।

কুমারখালীর আওয়ামী লীগ নেতা রউফ বলেন, “আমার চোখের দেখায় এই গম অতি নিম্নমানের হওয়ায় তা খাদ্য গুদামে ঢুকতে দেওয়া হয়নি।

“পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়া আর যাই হোক, অন্তত কুমারখালী খাদ্য গুদামে এই গম ঢুকতে দেওয়া হবে না।”

এ বিষয়ে কুমারখালী খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহাবুল আলম বলেন, দেশি গম স্থানীয়ভাবে মান যাচাই করে কেনা হলেও বিদেশ থেকে আমদানি করা গম কেন্দ্রীয়ভাবে পরীক্ষা করেই আসে।

“ব্রাজিল থেকে আমদানি করা ১৪ ট্রাক গম বিভিন্ন প্রকল্পের বিপরীতে খাদ্য গুদামে আনা হয়েছে। সরকারিভাবে নিয়মমাফিক আসা এই গমকে আমার খাদ্য গুদামে ঢোকাতে হবে।”

সংসদ সদস্যের বাধার বিষয়ে তিনি শাহাবুল বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে তাদের নির্দেশনা মতে কাজ করা হবে।

এ বিষয়ে কুমারখালী উপজেলার ভারপ্রাপ্ত খাদ্য কর্মকর্তা শাহনেওয়াজ গণমাধ্যমে কথা বলতে রাজি হননি।

ব্রাজিল থেকে আমদানি করা দুই লাখ টন গম ‘নষ্ট ও পচা’ বলে অভিযোগ ওঠার পর এনিয়ে হাই কোর্টে রিট আবেদনও হয়েছে।

আমদানি করা এসব গম মানুষের খাওয়ার উপযোগী কি না, তা জানাতে সরকারকে আদেশ দিয়েছে আদালত।






মন্তব্য চালু নেই