মেইন ম্যেনু

ব্লগার খুনে সরকারের পৃষ্ঠপোষকতার সন্দেহ ইমরানের

মুক্ত চিন্তক ব্লগারদের ওপর হামলার বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ড. ইমরান এইচ সরকার বলেছেন, সরকারের ভিতর থেকে পৃষ্ঠপোষকতা না থাকলে এভাবে একের পর এক হত্যাকাণ্ড সম্ভব না। হত্যাকাণ্ডের পর আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নির্লিপ্ত থাকছে।

শনিবার দুপুরে শুদ্ধস্বর প্রকাশনীর স্বত্ত্বাধিকারী আহমেদুর রশীদ টুটুলসহ দুর্বৃত্তদের হামলায় আহতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দেখতে গিয়ে এসব কথা বলেন ইমরান।

আহমেদুর রশীদ টুটুল হলেন জঙ্গিদের হামলায় নিহত মুক্তমনা ব্লগের প্রতিষ্ঠাতা ও বিজ্ঞানমনস্ক লেখক অভিজিৎ রায়ের বইয়ের প্রকাশক। গত ফেব্রুয়ারিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে খুন হন অভিজিৎ।

ইমরান আরো বলেন, তারা (আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী) প্রকৃত অপরাধীদের না ধরে ব্লগাররা কে কী লিখছে, কে কী বলছে তা নিয়ে ব্যস্ত থাকছে। এতে প্রকৃত অপরাধীরা আড়ালে থেকে যাচ্ছে এবং একের পর এক হত্যকাণ্ড ঘটিয়ে যাচ্ছে।

ব্লগার হত্যার পর বিষয়টি নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলো রাজনীতি শুরু করে বলেও অভিযোগ করেন গণজাগরণ মুখপাত্র। তিনি বলেন, হত্যাকাণ্ডের পর আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যাদের গ্রেপ্তার করে, হুটহাট করে কেন তাদের ধরে, কেন পরে তাদের ছেড়ে দেয় তা আমার কাছে পরিষ্কার না। এ বছর চারজন ব্লগারকে হত্যা করা হয়েছে। এরপর যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে কোন পরিস্থিতিতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে সেটি আমাদের কাছে পরিষ্কার না।

ইমরান বলেন, ব্লগারদের ওপর হামলা শুধু ব্লগারদের ওপর হামলা নয়, এটা মুক্তচিন্তার উপর হামলা।

এইসব হামলার পর আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী দুএকজনকে ধরে আন্দোলন দমিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে বলেও অভিযোগ ইমরানের।






মন্তব্য চালু নেই