মেইন ম্যেনু

ভাঙ্গায় ডাকাত গুজব আতঙ্কে এলাকাবাসীর রাত জেগে পাহারা

ফরিদপুর সদর ও সালথায় মিথ্যা ডাকাত গুজব আতংক শেষ হতে না হতেই ভাঙ্গায় শুরু হয়েছে এই মিথ্যা গুজব ডাকাত আতংক। আর এই ডাকাত গুজব আতংকে কান দিয়ে রোজার এই মাসে রাত জেগে জেগে সাধারন মানুষ পাহারা দিয়ে যাচ্ছে ভাঙ্গা উপজেলায়। উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে সংঘবদ্ধ ডাকাতদল প্রতিনিয়ত হানা দিচ্ছে এই খবর পুজি করে পাহারা চলছে। প্রত্যন্ত এলাকাগুলোতে ডাকাত গুজব আতংকে গ্রামবাসী নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে।

গত কয়েকদিনে ব্যস্ততম সড়কগুলোতে এবং বিভিন্ন হাট বাজারে বিপনীবিতানগুলোতে ঈদ সামগ্রী ক্রয় করতে আসা লোকজনের কাছ থেকে টাকা পয়সা ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনা ঘটলেও তেমন কোন ডাকাতির খবর নেই যা শুধু গুজবে সীমাবদ্ধ। এর মধ্যে একটি ঘটনায় গত মঙ্গলবার ব্যাংক লেনদেন চলাকালীন সময় ভাঙ্গা বাজার সোনালী ব্যাংকের শাখা থেকে জনৈক ইউপি সচিব যুগল মল্লিকের কাছ থেকে ১লক্ষ ৮৮ হাজার টাকা দূর্বৃত্তরা নিয়ে যায় যাকে ছিনতাই বলা যায় এটা ডাকাতি নয়।

কিন্ত তারপড়েও নিরাপত্তাহীনতার কারণে জরুরী প্রয়োজন ছাড়া রাত ৮টার পর সড়কগুলোতে লোকজন চলাচল প্রায় নেই বললেই চলে। গত কয়েকদিনে উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের গ্রামগুলোতে সংঘবদ্ধ ডাকাতদল প্রতিদিনই হানা দিচ্ছে এই খবর প্রচার করা হচ্ছে। এর মধ্যে ভীতির মধ্যে পড়েছে বিশেষ করে পুরুষশূন্য প্রবাসী বিত্তবানদের বাড়ি গুলো তারা সম্ভ্রমহানির ভয়ে রয়েছেন। সরেজমিন কয়েকটি গ্রামে ঘুড়ে দেখা গেছে, রাত ৮টার পরে গ্রামগুলোতে দেশীয় অস্ত্র সজ্জিত গ্রামবাসীদের রাত জেগে পাহারা দিচ্ছে।

এর মধ্যে একটি ঘটনা ঘটেছে গত শুক্রবার উপজেলার তুজারপুর গ্রামে ২০/২৫জনের সংঘবদ্ধ ডাকাতদল জনৈক হাবিব মাতুব্বরের বাড়িতে ডাকাতি করতে গিয়ে ১ ডাকাত জনতার হাতেনাতে ধরা পড়ে। এদিকে একই রাতে উপজেলার কাউলীবেড়া ইউনিয়নের কামারকান্দা গ্রাম, নাছিরাবাদ ইউনিয়নের আবদুলাবাদ গ্রামের বিপ্লব বাড়ৈর বাড়িতে, ঘারুয়া ইউনিয়নের খামিনারবাগ গ্রাম, চৌকিঘাটা গ্রামসহ বেশ কয়েকটি গ্রামে ডাকাতদল হানা দেয় বলে প্রচার করা হয়েছে যা মিথ্যা গুজব। ডাকাত আতঙ্কে গ্রামবাসীরা পালাক্রমে দেশিয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সজ্জিত হয়ে পাহারা দিচ্ছে।

উক্ত গ্রামগুলোতে চরম আতঙ্কে পরিবারের সদস্যরা নির্ঘুমরাত ও নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছে। উপজেলা সদরের প্রদীপ নামে একজন জানান, আমার জানামতে কোথাও কোন ডাকাতির ঘটনা ঘটেনি অনেক জায়গায় ডাকাতির কথা শুনে আমি নিজেও গিয়েছিলাম সেখানে গিয়ে সেটা মিথ্যা ঘটনা বলে প্রমান পেয়েছি।

এ ব্যাপারে ভাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ নাজমুল ইসলাম জানান, এটি একটি গুজব আতংক আমাদের এখানে কোন ডাকাতির ঘটনা ঘটেনি। রাতে পাহারার দেওয়ার সময় অপরিচিত কাউকে দেখলে ডাকাত ডাকাত বলে হামলা চালানো হচ্ছে। এটা নিমূলের জন্য আমরা গ্রাম্য চোকিদার ও আমাদের অফিসাররা এলাকা এলাকায় গিয়ে সবাইকে এই মিথ্যা গুজব আতংক থেকে দূরে থাকার পরামর্শ প্রদান করছি। আমরা এখন পাহারাটা বন্ধ করার চেষ্টা করছি এলাকা গুলোতে।






মন্তব্য চালু নেই