মেইন ম্যেনু

ভাবুন যদি সিনেমা না থাকতো জীবন কেমন হতো

হলিউড, বলিউড অথবা বাংলা সিনেমা- বিনোদনের জন্য সবধরনের সিনেমাই দর্শকদের কাছে জনপ্রিয়। আমাদের জীবনে সিনেমা কিন্তু কম গুরুত্ব বহন করে না। সিনেমার কাহিনী, গান সবকিছুই মানুষের অবসরের সঙ্গী। কিন্তু সিনেমা ছাড়া আমাদের জীবন কেমন হতো, কেউ কি কখনো ভেবে দেখেছেন? যদি সিনেমা না থাকতো তাহলে আমাদের জীবন কিভাবে কাটতো, কি কি সমস্যা হতো, কি সুবিধা থাকতো! চলুন না, একবার কল্পনাতেই দেখে নেই সিনেমা ছাড়া কেমন কাটতো মানুষের জীবন…

১. যেকোন খবর মানুষের কাছে সরাসরি পৌঁছে দেয়ার একটি বড় মাধ্যম চলচ্চিত্র। সিনেমার মাধ্যমে দর্শকদের যেই বার্তা দেওয়া হয়, সেটি মানুষ সহজেই গ্রহণ করে নেয়। এই মাধ্যমটি না থাকলে হয়তো অনেক সচেতনতামূলক ম্যাসেজ মানুষের কাছে সহজে পৌঁছাত না।

২. বিনোদনের অন্যতম উপাদান গান। গান ছাড়া সিনেমা হয় না। আর সিনেমা যদি না থাকতো তাহলে এতো গান থাকতো না, মানুষের বিনোদন ব্যবস্থাও থাকতো না।
৩. যেহেতু গান থাকতো না, সেহেতু আমাদের জীবন থেকে সুর মুছে যেত। তখন মানুষ আনন্দে গেয়ে উঠত না।

৪. মানুষের জীবনে ফ্যাশন থাকতো না যদি সিনেমা না থাকতো। পোশাকে নতুনত্ব থাকতো না। একঘেয়ে জামা কাপড় পরে জীবন কাটাতে হতো।

৫. মানুষ কথায় কথায় সিনেমার ডায়ালগ দিতে পারত না। কাউকে প্রেমের প্রস্তাব দেয়ার সময় কোন আবেগঘন কথা বলতে পারতো না মানুষ।

৬. সিনেমা যদি না থাকতো তাহলে বেড়ানোর জন্য সিনেমা হলে যাওয়া হতো না মানুষের, সময় কাটানোর জন্য অন্যকিছু ভাবতে হতো।

৭. অনেক সুন্দর সুন্দর লোকেশনে সিনেমার শুটিং হওয়ায় আমরা ঘরে বসেই পৃথিবীর অন্য দেশের সুন্দর জায়গা গুলো দেখতে পারি। সিনেমা না থাকলে সেই সৌন্দর্যের স্বাদ মানুষ নিতে পারতো না।

৮. নায়ক নায়িকাদের নিয়ে মানুষের যেমন আগ্রহ আছে এখন মানুষের কছে, সিনেমা না থাকলে সেই ব্যপারটাই থাকতো না। এই সুন্দর চেহারাগুলোর খোঁজ পেত না কেউ।

৯. সিনেমা না থাকলে নাচ, ছবি তোলা ইত্যাদি ব্যপারগুলো সমন্ধে কখনোই জানতে পারতো না মানুষ।

১০. ভেবে দেখুন তো, সিনেমা যদি না থাকতো তাহলে কি এই প্রতিবেদন পড়তে হতো? পত্রিকায় থাকতো না কোন বিনোদনের সংবাদ।






মন্তব্য চালু নেই