মেইন ম্যেনু

ভারতকে টপকে অস্ত্র আমদানির শীর্ষে সৌদি আরব

ভারতকে টপকে ২০১৫ সালে বিশ্বে সর্বাধিক অস্ত্র আমদানিকারক দেশ সৌদি আরব। ২০১৪ সালে তালিকার শীর্ষে থাকা ভারত নেমে গেছে দ্বিতীয় অবস্থানে। সৌদির অস্ত্র আমদানি আগের পাঁচ বছরের চেয়ে ২৭৫ শতাংশ বেড়েছে। একই সময়ে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে অস্ত্রের ব্যবহার বেড়েছে ৬১ শতাংশ।

আর বিশ্বে অস্ত্রের বাণিজ্য ২০১১ থেকে ২০১৫ সালে এর আগের পাঁচ বছরের তুলনায় ১৪ শতাংশ বেড়েছে।

দক্ষিণ এশিয়ার আরেক শক্তিধর দেশ পাকিস্তান আগের বছরের তুলনায় এক ধাপ নিচে নেমে তালিকার দশে অবস্থান করছে। শীর্ষ ১০ অস্ত্র আমদানিকারক দেশের ছয়টিই এশিয়ার।

বৈশ্বিক অস্ত্র লেনদেনের প্রবণতা বিশ্লেষণ করে ‘ট্রেন্ডস ইন ইন্টারন্যাশনাল আর্মস ট্রান্সফার্স, ২০১৫’ শীর্ষক প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরেছে সুইডেন ভিত্তিক আন্তর্জাতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিপ্রি(স্টকহোম ইন্টারন্যাশনাল পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউট)।

আমদানির তালিকায় তৃতীয় স্থানে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া, চতুর্থ মিশর, পঞ্চম সংযুক্ত আরব আমিরাত, ষষ্ঠ ইরাক, সপ্তম চীন, অষ্টম ভিয়েতনাম ও নবম গ্রিস। প্রথম ও দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা সৌদি আরব ও ভারতের মধ্যে আমদানিকৃত অস্ত্রের পার্থক্য সামান্য।

6XaZABghq3wF

২০১৫ সালে ভারত যেখানে ৩০৭ কোটি ৮০ লাখ মার্কিন ডলারের অস্ত্র আমদানি করেছে, সেখানে পাকিস্তানের আমাদিনকৃত অস্ত্রের মূল্য ৭৩ কোটি ৫০ লাখ মার্কিন ডলার।

ভারত সবচেয়ে বেশি অস্ত্র আমদানি করে রাশিয়ার কাছ থেকে, এরপর যথাক্রমে ইসরাইল ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে। অন্য দিকে পাকিস্তান সবচেয়ে বেশি অস্ত্র আমদানি করে চীনের কাছ থেকে। চীনের মোট অস্ত্র রফতানির ৩৫ শতাংশ ক্রয় করে পাকিস্তান। দেশটি এরপর বেশি অস্ত্র ক্রয় করে যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে।

একই বছর সেরা অস্ত্র রফতানিকারক দেশ হলো যুক্তরাষ্ট্র আর দ্বিতীয় স্থানে ছিল রাশিয়া। তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে চীন। গত পাঁচ বছরে চীনের অস্ত্র রফতানি খাতে আয় দ্বিগুণ বেড়েছে। চীন থেকে সবচেয়ে বেশি অস্ত্র আমদানি করে পাকিস্তান। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। আর চীনা অস্ত্রের তৃতীয় বৃহত্তম ক্রেতা আরেক প্রতিবেশী মিয়ানমার।






মন্তব্য চালু নেই