মেইন ম্যেনু

ভারতীয় পুলিশি হেনস্থার হাত থেকে বাঁচতে যে ৮টি ট্র্যাফিক আইন জানা উচিত…

আইন যেমন রয়েছে, তেমনই রয়েছে আইনের অপব্যবহারও। সেই অপব্যবহার রোখার একমাত্র উপায়— আইন সম্পর্কে জনসাধারণের সচেতনতা। ট্র্যাফিক আইন সম্পর্কে সচেতন হতে গেলে এই ৮টি নিয়ম আপনার জেনে রাখা দরকার—

১. যথাযথ রসিদ ছাড়া কখনওই পুলিশ আপনার ড্রাইভিং লাইসেন্স বাজেয়াপ্ত করতে পারে না। লাল বাতির নিষেধ ভাঙা, গাড়িতে অতিরিক্ত মাল চাপানো, মদ খেয়ে গাড়ি চালানো, কিংবা গাড়ি চালাতে চালাতে মোবাইলে কথা বলা— এই ধরনের ‘অপরাধে’ আপনার লাইসেন্স বাজেয়াপ্ত করা হতে পারে।

২. ততক্ষণ পর্যন্ত আপনার গাড়ি বাজেয়াপ্ত করতে পারে না পুলিশ, যতক্ষণ না আপনি গাড়ি থেকে নেমে দাঁড়াচ্ছেন। আপনি গাড়িতে থাকাকালীন পুলিশের পক্ষে আপনার গাড়ি টেনে নিয়ে যাওয়া আইনত সম্ভব নয়।

৩. যদি আপনি কোনও মহিলা হন, কিংবা আপনার সঙ্গে কোনও মহিলা থাকেন, এবং সন্ধ্যা ছ’টার পর কোনও কারণে ট্র্যাফিক পুলিশ আপনাকে আটকায়, তাহলে আইনত আপনি থানা থেকে মহিলা পুলিশ নিয়ে আসতে বলতেই পারেন। কারণ কোনও পুরুষ পুলিশ কর্মীর পক্ষে কোনও মহিলাকে ‘সার্চ’ করা আইনসিদ্ধ নয়।

৪. মোটর ভেহিক্‌লস-এর ১৩০ নম্বর ধারা অনুসারে আপনি আপনার লাইসেন্স বা গাড়ির কাগজপত্র পুলিশের হাতে তুলে দিতে বাধ্য নন। কারণ আইনে বলা রয়েছে, আপনি শুধু গাড়ির কাগজপত্র ‘প্রদর্শন’ করতে বাধ্য।

৫. আপনাকে ফাইন করার সময়ে অবশ্যই পুলিশের হাতে চালান-বই বা নিদেনপক্ষে ই-চালান থাকতে হবে। না হলে আপনাকে ফাইন করার অধিকার তাঁর নেই।

৬. কোনও পুলিশ যদি তাঁর ইউনিফর্ম না পরে থাকেন, কিংবা তাঁর ব্যাজে যদি তাঁর নাম লেখা না থাকে, তাহলে আপনার বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার অধিকার তাঁর নেই।

৭. আপনাকে গাড়ি থেকে ঠেলে বের করে দেওয়ার কিংবা আপনার গাড়িটিকে দখল করে নেওয়ার অধিকার কোনও ট্র্যাফিক পুলিশেরই নেই।

৮. আপনাকে যদি কোনও কারণে পুলিশ গ্রেফতার করে, তা হলে সোজা থানায় নিয়ে যেতে তিনি বাধ্য। মাঝপথে গাড়ি থামিয়ে যদি তিনি রফা-মীমাংসার চেষ্টা করেন, তাহলে তিনি বেআইনি কাজ করছেন। আপনাকে থানায় নিয়ে যাওয়ার ২৪ ঘন্টার মধ্যে আপনার উকিলের সঙ্গে যোগাযোগ করার আইনি অধিকারও আপনার রয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই