মেইন ম্যেনু

ভারতের যে গ্রামে পৌঁছয় সূর্যের প্রথম কিরণ

অামেরিকার খ্যাতনামা লেখিকা জেনেট ওয়ালস্ একবার লিখেছিলেন, “ইফ ইউ ওয়ান্ট টু বি রিমাইন্ডেড অফ দা লাভ অফ দা লর্ড, জাস্ট ওয়াচ দা সানরাইজ।” অর্থাৎ “যদি ঈশ্বরের ভালোবাসা প্রত্যক্ষ করতে চান, তা হলে ভোরে সূর্যোদয় দেখুন।” কথাটা খুব সত্যি! রাতের নিকষ কালো অন্ধকারের পর প্রথম সূর্যোদয় দেখলেই যেন মনে হয়, এই বোধহয় পৃথিবীর ঘুম ভাঙল।

ভূগোলের বইয়ের পাতায় সেই ছোটোবেলা থেকেই লেখা থাকে, নরওয়েকে “সূর্যোদয়ের দেশ” বলা হয়। কারণ পৃথিবীতে প্রথম সূর্য নরওয়েতেই ওঠে। কিন্তু, মজার বিষয় হলো যে ভারতে কোথায় প্রথম সূর্য ওঠে, সেটা নিয়ে কখনো ভেবেছেন? অথচ, ভারতেও একটি প্রত্যন্ত গ্রাম রয়েছে, যেখানে দেশের প্রথম সূর্যের আলো পৌঁছয়।

ডং। নামটা অনেকের কাছেই অজানা। অরুণাচল প্রদেশের একটি প্রত্যন্ত গ্রাম। লোহিত নদীর তীরে গড়ে উঠেছে এই ছোট্ট জনবসতি। ১৯৯৯ সালে প্রথম আবিষ্কার করা হয় যে এই ছোট্ট গ্রামেই দেশের প্রথম সূর্যোদয় হয়। এই গ্রামটিই আমাদের দেশের পূর্বদিকের শেষ সীমানা হিসেবে ধরা হয়। আর এই কথা প্রকাশ্যে আসতেই ভ্রমণ পিপাসুদের আগমনের সংখ্যাও দিন দিন বাড়তে শুরু করেছে।

শীতকালে এই গ্রামে প্রতিদিন ভোর ৫টা ৫৪ মিনিটে প্রথম সূর্য দেখতে পাওয়া যায়। আর বিকাল সাড়ে চারটার দিকে অস্ত যায়। সারা দেশে মোটামুটি এক ঘণ্টার হেরফেরে সূর্যোদয় দেখতে পাওয়া যায়।

তা কী ভাবছেন ? আপনার পরবর্তী গন্তব্য হিসেবে বেছে নেবেন নাকি ভারতের সেই জায়গাকে, যেখানে প্রথম সূর্যের আলো এসে পড়ে।-ইন্দোইন্ডিয়া






মন্তব্য চালু নেই