মেইন ম্যেনু

ভোলার নদী ভাঙ্গন যে কোন মূল্যে রোধ করা হবে

ভোলার উন্নয়নে বড় বাধা হচ্ছে নদী ভাঙ্গন। তাই যে কোন মূল্যে নদী ভাঙ্গন থেকে ভোলাকে রক্ষা করা হবে।
শুক্রবার দুপুরে সদরের ইলিশা ইউনিয়নে ভাঙ্গন কবিলত এলাকা পরিদর্শন শেষে আয়োজিত জনসভায় পানি সম্পদ মন্ত্রী আনিছুল ইসলাম মাহমুদ ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ পৃথক বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

বানিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, ভাঙ্গনের কারনে ইলিশা ও রাজপুরসহ ভোলার বহু সম্ভ্রান্ত পরিবার গৃহহারা হয়ে গেছে, সড়ক ভেঙ্গে যাওয়ায় বন্ধ হয়ে গেছে ভোলার সাথে ২১ জেলার সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা।

বানিজ্যমন্ত্রী আরো বলেন , আমরা পরিকল্পনা নিয়েছি দেশের মধ্যে ভোলাকে সবচেয়ে সমৃদ্ধশালী জেলার রুপান্তরিত করার, কিন্তু এর উন্নয়নে প্রধান বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে নদী ভাঙ্গন। তাই জেলাকে রক্ষা করতে হলে যে কোন মূল্যে ভাঙ্গন রোধ করতে হবে।
অপরদিকে পানি সম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন, দেশের যেখানেই সমস্যা হয় সেখানেই প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমাদের যেতে হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ভোলার নদী ভাঙ্গন সমস্যায় আমাদের আসতে হয়েছে।

এ জেলার ভাঙ্গন রোধে যত অর্থ ব্যায় হোক না কেন কার্যকরী পদক্ষেপ নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। পরবর্তিতে স্থায়ী পদক্ষেপ নিয়ে ভোলাকে ভাঙ্গন থেকে রক্ষা করা হবে। এ সময় পানি সম্পদ মন্ত্রী ভোলার ভাঙ্গন রোধে সর্বশক্তি দিয়ে কাজ করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে জনসাধারনের সহযোগীতা কামনা করেন।

সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোশারেফ হোসেনের সভাপতিত্বে জনসভায় উপস্থিত ছিলেন, ভোলা-২ আসনের সংসদ সদস্য আলী আজম মুকুল, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মাঈনুল হোসেন বিপ্লব, সদর উপজেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক নজরুল ইসলাম গোলদার, জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জহিরুল ইসলাম নকিব, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার শফিকুল ইসলাম, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো: ইউনুস ছাড়াও দলীয় অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন,পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহা পরিচালক মো: ইসমাইল হোসেন, জেলা প্রশাসক মো: সেলিম রেজা, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানসহ জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তরা।

এর আগে সকাল থেকেই ভোলা-লক্ষীপুর-বরিশাল সড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে দাড়িয়ে ব্যানার ও ফেস্টুন নিয়ে ভোলার ভাঙ্গন রোধে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানান স্থানীয়রা।






মন্তব্য চালু নেই