মেইন ম্যেনু

ভোলায় অবাধে বিক্রি হচ্ছে নিষিদ্ধ ঘোষিত ঔষধ

ভোলায় অবাধে বিক্রি করা হচ্ছে নিষিদ্ধ ঘোষিত ৫১ প্রকার ঔষধ। মাবনদেহে ক্ষতিকর প্রভাব পড়ে এমন প্রমান পাওয়ায় কয়েকটি দেশীয় কোম্পানীর প্যারাসিটামল, পায়োগ্লিটাজন ও রসিগ্লিটাজন গ্রুপের উৎপাদিত ৫১টি ঔষধে রেজিষ্ট্রেশন বাতিল করেছে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর।নিষিদ্ধঘোষিত ঔষধসমুহ হলো রেনেটার প্যারাডট, পায়োগ্লিন ৩০ ট্যাবলেট, স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালসের এইচ সফট ট্যাবলেট, টস ৩০ ট্যাবলেট, সেনসুলিন২ ট্যাবলেট,বেক্সিমকো ফার্মার নাপা সফট ট্যাবলেট, পায়োগ্লিট ৩০ টেবলেট, পায়োগ্লিট ৪৫ টেবলেট, ড্রাগ ইন্টারন্যাশনারের ফিভিমেট ট্যাবলেটসহ বিভিন্ন কোম্পানীর একাধিক প্রচলিত ঔষধ।

ঔষধ নিয়ন্ত্রণ কমিটির ২৪৪তম সভায় এ ৫১টি ঔষধের রেজিস্ট্রেশন বাতিল কারা হয়েছে।বাতিলকৃত প্যারাসিটামল,প্যায়োগ্লিটাজন ও রসিগ্লিটাজন গ্রুপের ঔষধসমুহের উৎপাদন,ক্রয়,বিক্রয়,মজুদ ও প্রর্দশন সর্ম্পুন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। জনসাধারণ এসব ঔষধ ব্যবহার না করার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

কোম্পানীগুলোকে এসব ঔষধ নিজেস্ব চ্যানেলের মাধ্যমে বাজার থেকে প্রত্যাহার করে তার পরিমানসহ অধিদফতরকে জানানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।এ নির্দেশ দেওয়ার এক সপ্তাহের বেশি সময় অতিবাহিত হলেও বাজার হতে নিসিদ্ধ তুলে নেয়নি সংশ্লিষ্ট ঔষধ কোম্পানী।

তবে এসব বিষয়ে কোন তৎপরতা দেখাচ্ছে না ড্রাগ নিয়ন্ত্রনকারী কতৃপক্ষ।এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মো. সেলিম রেজা বলেন, নিষিদ্ধ ঔষধ বিক্রি বন্ধে অভিযান পরিচালনা করা হবে।






মন্তব্য চালু নেই