মেইন ম্যেনু

‘ভ্যালেন্টাইন্স ডে’ উপলক্ষে ২ লাখ ৫০ হাজার ডলারের চকলেট বিক্রি

‘ভ্যালেন্টাইন্স ডে’ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিভিন্নভাবে পালিত হয়। বহু বছর ধরে ভিন্ন ভিন্ন দেশগুলোতে ভিন্ন ধরনের এ রীতি চলে আসছে। আর এ দিবসে কাছের প্রত্যেকটি মানুষকে চকলেট দিয়ে শুভেচ্ছা জানানোটা অনেক দেশে বেশ জনপ্রিয়। কারণ চকলেট ছাড়া ভালোবাসার প্রথম ধাপটি যেন শেষই হয় না।

লি-ল্যাক চকলেট ফ্যাক্টরি। এই ফ্যাক্টরির হার্ট আকৃতির চকলেট বিশ্ব সমাদৃত। ভালবাসা দিবস উপলক্ষে এই ফ্যাক্টরির কর্মীরা এখন ব্যস্ত চকলেট প্যাকেটজাতকরণে। লি-ল্যাক ১৯২৩ সাল থেকে চকলেট তৈরি করে আসছে। ভালবাসা দিবসে লি-ল্যাক বিক্রি করবে ২ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলারের সমমূল্যের চকলেট।

প্রতি সপ্তাহে লি-ল্যাক যা বিক্রি করে এই ভালবাসা দিবসে বিক্রি করে তার প্রায় ৫০০ থেকে ৬০০ গুণ বেশি। এই ফ্যাক্টরি’র প্রেসিডেন্ট এবং সহ-মালিক এন্থনি বলেন, ভালবাসা দিবসসহ প্রায় দশটি দিবসে আমাদের লি-ল্যাক চকলেটের বেশ চাহিদা পড়ে। আমরা চাহিদা অনুযায়ী চকলেট উৎপাদন করি এবং এই দশটি দিবসে আমরা ভাল মুনাফা করি। অন্যান্য দিবসগুলোর তুলনায় আমরা এই দিবসগুলো প্রায় ৫শত থেকে ৬শত গুণ বেশি মুনাফা করি।

ফোবসকে বলতে গিয়ে টেইলর বলেন, আমরা অতিরিক্ত চকলেট উৎপাদন করে গুদামজাত করি না বরং চাহিদা বুঝেই উৎপাদন করি। ভালবাসার মানুষকে বেশি বেশি করে উপহার দিন চকলেট। চকলেট ভালোবাসা বাড়ানোর সাথে সাথে সুস্থ রাখবে সর্ম্পকের মানুষটিকেও।

চলুন জেনে নিই চকলেটের কিছু উপকারিতা।

১.হার্ট: চকলেট হার্ট ভাল রাখতে সাহায্য করে। বিশেষত নারীদের। দুধ, চিনি ও মাখন থাকার জন্য চকলেট খুব ভাল অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট। যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। এমনকী, আপেলের তুলনায় পাঁচ গুণ ফ্ল্যাভনয়েড রয়েছে চকলেটে। এখন বুঝেছেন তো উপহার হিসেবে কেনো ভালো চকলেট।

২.ওজন: ভালোবাসার মানুষের স্বাস্থ্য সুন্দর হোক, তাকে দেখতে ভালো লাগুক, এমনটা তো সকলেই চান। আর চেহারা সুন্দর রাখতে দারুণ উপকারী ডার্ক চকলেট। ডার্ক চকলেট খেলে মিষ্টি, নোনতা, ফ্যাটজাতীয় খাবার খাওয়ার প্রবণতা কমে। তাই স্বাস্থ্য সুন্দর রাখতে ডার্ক চকলেটেই জমে উঠুক ভালোবাসা।

৩.ডায়াবেটিস: ডার্ক চকলেটের মধ্যে থাকা ফ্ল্যাভনয়েড রক্তে ইনসুলিনের মাত্রা বাড়াতেও সাহায্য করে। তাই ভালবাসার মানুষটিকে দীর্ঘদিন সুস্থ রাখতে তাকে চকলেটের আহ্লাদে রাখতেই পারেন।

৪.স্ট্রেস: চকলেট যে স্ট্রেস কমাতে সাহায্য করে তা তো এতক্ষণে জেনেই গেছেন। আর তাই সম্পর্কে খুশি থাকতে চকলেট যেমন সাহায্য করে, তেমনই ব্রেক আপের পর স্ট্রেস কাটাতেও চকোলেট কিন্তু দারুণ বন্ধু।

৫.সান প্রোটেকশন: চকলেটের ফ্লাভনলের মধ্যে সূর্যরশ্মি থেকে ত্বককে রক্ষা করার ক্ষমতা রয়েছে। টানা তিন মাস চকলেট খেলে ত্বক রোদে পোড়ার হাত থেকে রক্ষা পায়। তাই ভালোবাসার মানুষকে চকলেট উপহার দিন। ভালোবাসার গ্লো চেহারায় ফুটে উঠবে।

৬.বুদ্ধি: সম্পর্ক সুন্দর রাখতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সঠিক আচরণ। বুদ্ধি করে পরিস্থিতির মোকাবিলা, প্রতিক্রিয়াই সম্পর্কে পার্থক্য গড়ে দেয়। রোজ চকলেট ড্রিঙ্ক খেলে বুদ্ধি বাড়ে। ফলে চকলেট উপহার দিলে সম্পর্কে বোঝাপড়া বাড়তে বাধ্য।






মন্তব্য চালু নেই