মেইন ম্যেনু

মওদুদ ভাই আইলে খুশি হইতাম, আইলো না হেই মিয়া

নোয়াখালীর সন্তান ওবায়দুল কাদের ও ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ দুজনই জাতীয় নেতা। একসময় একই দলের কাণ্ডারি থাকলেও দল ছাড়েন মওদুদ। বর্তমানে তিনি বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য। আর ওবায়দুল কাদের আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য। একে অপরের প্রতিদ্বন্দ্বীও তারা। কিন্তু আঞ্চলিক ইস্যুতে দু’জনই হয়ে যান এক।

তাই নোয়াখালী সমিতির অনুষ্ঠানে এসে বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদকে না দেখে অনেকটাই হতাশ হয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা ওবায়দুল কাদের। ওই অনুষ্ঠানে সাবেক মন্ত্রী মওদুদ আহমদের বক্তব্য দেয়ার কথা ছিল।

তাই মওদুদহীন নোয়াখালীর অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেয়ার সময় আঞ্চলিক ভাষায় ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘মওদুদ ভাই আইলে আই (আমি) খুশি অইতাম। কিন্তু আইলো না হেই মিয়া। আইলে উনার লগে দেখা অইতো, দুইডা কথা অইতো, সব সময় তো দেখা অয় না।’

তবে এ সময় তিনি মওদুদকে নিয়ে হাস্যরস করতেও ছাড়েননি। বললেন, ‘হ্যাতে (মওদুদ) ঠিকই অনুষ্ঠানে আইতে চাইছিল। কিন্তু দল চায়নাই বইলাই হেই মিয়া আইতে পাড়লো না।’

বক্তব্যের শেষ পর্যায়ে উপস্থিত জনতার উদ্দেশ্যে ওবায়দুল কাদের মজা করে বলেন, ‘ইয়ানো মেজবান আছে। গরুর মাংস, বুটের ডাল, ইচা মাছ দি কছু আছে। ব্যগুনে খাইয়েন। তয় বেশি খাই হ্যাড খারাপ কইরেন ন।’

এদিকে শুক্রবার সকাল থেকেই রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে চলছে ‘নোয়াখালী উৎসব ২০১৫’। এর আগে সকাল সাড়ে ৮টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে থেকে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালির উদ্বোধন করা হয়। অনুষ্ঠানের শেষপর্বে নোয়াখালীর বিভিন্ন উপজেলাভিত্তিক স্মৃতিচারণ, আঞ্চলিক গান, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, র‌্যাফেল ড্রসহ বিভিন্ন পর্ব রয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।






মন্তব্য চালু নেই