মেইন ম্যেনু

মসজিদের জুতা চুরি ঠেকানোই কি কাল হলো খাদেমের?

মসজিদের জুতা চোরদের হাতেই কী খুন হয়েছেন রাজধানীর ঈদগাহ মসজিদের খাদেম দুলাল গাজী (৫০)। মসজিদটিতে জুতা চোরদের উৎপাত ছিল তুলনামূলক বেশি।

আর এদের অত্যাচার থেকে মুসল্লিদের জুতা রক্ষার দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল মসজিদের এই খাদেমকে। আর এর পর থেকে মসজিদের জুতা চুরিও কমে গিয়েছিল।

এ ছাড়া মসজিদের উন্নয়ন মূলক কর্মকা-ের টাকা পয়সার হিসাবও তার কাছে ছিল। আর এই দুটি বিষয়কে সামনে রাখেই পুলিশ আগাচ্ছে। তবে পুলিশ এখনো কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

শুক্রবার দুপুরে নিহতের লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গ থেকে গ্রহণ করেন তার চাচা মো. রনি। তিনি বলেন, আমার ভাতিজা ধানমন্ডি ঈদগাহ মসজিদের জুতা চুরি প্রতিরোধ করার দায়িত্বে নিয়োজিত ছিল। এছাড়া তিনি মসজিদের উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ড পরিচালনা করার জন্য যে সব টাকা পয়সা উঠত ওই টাকা পয়সা তার কাছেই থাকত।

কক্ষের ভেতরে যে আলমারি বা বাক্স ছিল সেগুলো খোলা অবস্থায় পাওয়া গেছে। চুরিকে কেন্দ্র করে এ হত্যাকান্ড হতে পারে।

এদিকে গত বৃহস্পতিবার রাতেই ধানমন্ডি ঈদগাহ মসজিদের মোয়াজ্জিন মো. মহিউদ্দিন বাদি হয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে ধানমন্ডি থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশ কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেননি।

পুলিশের বক্তব্য হচ্ছে- কোন চোর চক্র চুরি করতে এসে গলায় গামছা পেঁচিয়ে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে থাকতে পারে। তবে বিষয়টি এখনো তদন্তাধীন থাকায় এ ব্যাপারে কোন মন্তব্য করা ঠিক হবে না।

ধানমন্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নুরে আজম মিয়া বলেন, মসজিদের খাদেমকে কেন কারা হত্যা করেছে এ বিষয়ে আমি এখন পর্যন্ত কিছু বলতে পারবনা।

বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১২টার দিকে মসজিদের ইমামের ঘর থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত দুলাল গাজীর বাড়ি বরিশাল জেলার বাকেরগঞ্জ উপজেলায়। তিনি ১৮ বছর ধরে ধানমন্ডির ৬/১ চৌধুরী কমিউনিটি সংলগ্ন ঈদগাহ মসজিদে খাদেম হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

চারতলা মসজিদের দ্বিতীয়তলায় ইমামের রেস্টরুম থেকে খাদেমের লাশটি উদ্ধার করা হয়েছে। কক্ষের ভেতরে যে আলমারি বা বাক্স ছিল সেগুলো খোলা অবস্থায় পাওয়া গেছে।

জানতে চাইলে রমনা অঞ্চলের পুলিশের উপ-কমিশনার মো. আবদুল বাতেন বলেন, প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে চুরি সংক্রান্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে এ হত্যাকা- ঘটতে পারে। তবে বিষয়টি এখনো পর্যন্ত তদন্তাধীন।ঢাকাটাইমস






মন্তব্য চালু নেই