মেইন ম্যেনু

মসলার রাণী এলাচের গুণ

মসলার রাণী এলাচ ছাড়া গুরুপাকের কোনো রান্না যেন তার উপযুক্ত স্বাদ আর ঘ্রাণে পৌঁছতে চায় না। মিষ্টি জাতীয় খাবারেও সুঘ্রাণ ছড়াতে এলাচের ব্যবহার চলে পুরোদমে। এলাচ খাবারকে শুধু স্বাদে-গন্ধে অনন্য করতে নয়, আমাদের দেহে প্রয়োজনীয় অনেক পুষ্টির যোগান দিতেও সক্ষম। প্রতি ১০০ গ্রাম এলাচে পাবেন ৩১১ কিলোক্যালরি শক্তি, ফ্যাট ৭ গ্রাম, কোলেস্টরেল ০ গ্রাম, সোডিয়াম ১৮ মিলিগ্রাম, পটাশিয়াম ১১১৯ মিলিগ্রাম, খাদ্যআঁশ ২৮ গ্রাম, প্রোটিন ১১ গ্রাম। এসব উপাদান নানা ধরনের রোগ প্রতিরোধক ও প্রতিশেধক হিসেবে কার্যকর। আসুন আজ জেনে নেবো এলাচের গুণ সম্পর্কে।

* হজমের সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে এলাচ অনেক কার্যকরী। বুক জ্বালাপোড়া, বমি ভাব, পেট ফাঁপা, অ্যাসিডিটির হাত থেকে মুক্তি পেতে এলাচ মুখে দিন।

* দেহের ক্ষতিকর টক্সিন দূর করে দিতে এলাচের জুড়ি নেই। এলাচের ডিউরেটিক উপাদান দেহের ক্ষতিকর টক্সিন পরিষ্কারে সহায়তা করে।

* এলাচের ডিউরেটিক উপাদান উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা কমিয়ে আনতে সক্ষম। দেহের বাড়তি ফ্লুইড দূর করে এলাচ উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা নিয়ন্ত্রণে আনতে সহায়তা করে।

* মাথাব্যাথা থেকে তাৎক্ষনিক মুক্তি পেতে এলাচ তেল ব্যবহার করলে সুফল পাওয়া যায় ।

* খাবারের সঙ্গে নিয়মিত এলাচ খাওয়ার অভ্যাস আপনাকে অস্থিরতা থেকে রক্ষা করবে।

* কালো এলাচ হার্ট সুস্থ্য রাখে, রক্তচাপ ও ক্যানসার নিয়ন্ত্রণে রাখে এবং রক্তসঞ্চালন বাড়ায়।

* কালো এলাচ হার্টের রোগ প্রতিরোধ করে, হৃদস্পন্দন নিয়ন্ত্রণ করে ফলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে। এ ছাড়া এলাচ রক্তসঞ্চালনে সহায়ক।

* মুখের দুর্গন্ধ, দাঁত দিয়ে রক্তপাত বা দাঁত ক্ষয় হওয়ার মতো মারাত্মক সমস্যা দূর করতে এলাচ খুবই কার্যকর একটি ওষুধ। এসব সমস্যায় মুখে একটি এলাচ দিয়ে চুষতে থাকুন।

* শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত সমস্যা হুপিংকাশি, ফুসফুস সংক্রমণ ও অ্যাজমার মতো সমস্যাতেও এলাচ খুবই উপকারী।

* এতে থাকে ভিটামিন সি, যা রক্তসঞ্চলন ও ত্বক সমস্যা দূর করে।

* রুপচর্চায় এর জুড়ি নেই, রুপচর্চা ও চেহারার কালো দাগ দূর করতে এলাচের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান খুবই কার্যকরী।

* নিয়মিত এলাচ খাওয়ার অভ্যাস ক্যানসার প্রতিরোধে সহায়তা করে। এলাচ দেহে ক্যানসারের কোষ গঠনে বাঁধা প্রদান করে থাকে।






মন্তব্য চালু নেই