মেইন ম্যেনু

মাইকিং করে ইলিশ বিক্রি

“এই যে লন, মাত্র ১৬০, ২৫০, ৩৫০, ৫০০ টাকা। ফুরায় গেলে আর পাইবেন না।” মাইকে এমন ঘোষণা শুনে খুলনাবাসী হারিয়ে গেলেন স্মৃতির অতলে। কত আগে এমন ঘোষণা শুনেছেন তারা সেটাই হাতড়াতে শুরু করলেন স্মৃতির ঝুলিতে।

মাইকের এই ঘোষণা আর কোনো কিছুর জন্য নয়, এই ঘোষণা স্বাদ ভুলতে বসা রূপালী ইলিশ মাছের। খুলনার অনেক বাজারই এখন বিপুল পরিমাণ রূপালী ইলিশে ভরপূর। ক্রেতার সংখ্যাও কম নয়। দাম কমে যাওয়ায় যে যতটা পারছেন কিনে নিয়ে যাচ্ছেন।

খুলনার নদ-নদী থেকে জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে রুপালী ইলিশ মাছ ধরা পড়ছে। এতে জেলে পরিবারের মধ্যেও দেখা দিয়েছে উচ্ছ্বাস। জেলে পল্লীতে বইছে আনন্দের বন্যা।

জলমা গ্রামের জেলে সরদার শিমুল মল্লিক বলেন, দাদনের বোঝা ও সংসারের ঘানিতে গত কয়েক বছর ধরে জেলেরা দুঃসহ জীবন-যাপন করে আসছেন। এবার নদীতে ঝাঁকে ঝাঁকে মাছ পাওয়ায় তারা আনন্দে আত্মহারা। বাজারে কিছু দিন আগে ইলিশের দাম বেশ চড়া থাকালেও এখন সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে চলে এসেছে বলেও জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, জলমা, ফুলতলা, বুজবুনিয়া, ছয়ঘড়িয়া, পুটিমারি, খারাবাত বাইনতলা, কচুবুনিয়ার প্রায় এক হাজার জেলে এখানকার নদীতে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। মাছ ধরা ও বিক্রি করাই তাদের পেশা।

জেলে অসিম সাহা বলেন, কয়েক বছর ধরে নদীতে মাছ কম পাওয়ার কারণে জেলেরা পরিবার-পরিজন নিয়ে হতাশা দুর্বিষহ জীবন কাটাচ্ছিলেন। এবার যেভাবে জেলেদের জালে ইলিশ মাছ ধরা পড়ছে এটি অব্যাহত থাকলে তাদের ভাগ্যের চাকা ঘুরে যাবে।

তিনি আরও বলেন, এবারের জেলেদের জালে ধরা পড়া প্রতিটি ইলিশ মাছের ওজন চারশ’ গ্রাম থেকে এক কেজির ওপরে।

বটিয়াঘাটা উপজেলা সচিব হারুন-অর-রশিদ বলেন, কাজিবাছা, পানখালি, শোলমারি, ঘ্যাংরাইল, রূপসা, শিবসা ও পশুর নদীতে এবার প্রচুর ইলিশ মাছ ধরা পড়ছে। দূর-দূরান্ত থেকে মানুষ ইলিশ মাছ কিনতে নদীর পাড়ে আসছেন।

এদিকে খুলনা মহানগরীর বড় বাজার, নিউ মার্কেট, টুটপাড়া জোড়াকল বাজার, রূপসার সন্ধ্যা বাজার, ময়লাপোতা মোড়ের সন্ধ্যা বাজার, বউ বাজার, শেখ পাড়া বাজার, বয়রা বাজার, দৌলতপুর, খালিশপুরসহ বিভিন্ন বাজারে প্রচুর ইলিশ মাছ আসতে শুরু করেছে।

অবস্থা এমন হয়েছে বরফজাত করতে না পারায় মাছে পচনও ধরেছে। ফলে বাজারগুলোতে মাছের দাম সব শ্রেণির মানুষের নাগালে চলে এসেছে।

বড় বাজারে মাছ কিনতে আসা রাজিয়া বেগম বলেন, ইলিশ মাছের চেয়ে বাজারে অন্যান্য মাছের দাম এখন অনেক বেশি। দাম কমে যাওয়ায় তিনি বেশ পরিমাণ মাছ কিনেছেন বলেও জানান।

জোড়াকল বাজারের মাছ বিক্রেতা মিন্টু জানান, রূপসা ও ৫ নম্বর ঘাটে প্রচুর ইলিশের ট্রলার এসেছে। মাছের পাইকারি দাম কমে গেছে। ফলে খুচরা বাজারেও ইলিশের দাম রয়েছে সকলের নাগালে।






মন্তব্য চালু নেই