মেইন ম্যেনু

মাগুরায় কোরবানির হাটে জাল টাকা সনাক্ত ও পশুর স্বাস্থ্য সর্তকতা বেড়েছে

মাগুরা প্রতিনিধি : মাগুরায় কোরবানির হাটে জাল টাকা সনাক্ত ও পশুর স্বাস্থ্য সর্তকতা বেড়েছে । ঈদের আর দুই-এক দিন বাকী। এরই মধ্যেকোরবানির হাট গুলো জমে উঠেছে। পাশাপাশি আইন শৃঙ্খলা বাহিনী প্রতিটি হাটে তাদের নজরদাড়ি বাড়িয়েছে।

মাগুরা সদরের রামনগর ,কাটাখালি ,ইটখোলা ,আবালপুর,শালিখার আড়পাড়া বাজার, সীমাখালি ,মহম্মদপুরের বেথুলিয়া ,নোহাটা ও শ্রীপুরের নাকোল বাজার , লাঙ্গলবাধ,সব্দালপুর ,দারিয়াপুর এলাকার প্রতিটি হাটে জাল টাকা সনাক্ত কাউন্টার ও পশুর স্বাস্থ্য সর্তকতা লক্ষ্য করা গেছে ।

মাগুরা জনতা ব্যাংকের এক্সিকিউটিভ অফিসার হাসানুজ্জামান জানান, ঈদ উপলক্ষে জাল টাকার সনাক্ত করতে আমরা হাটে কাউন্টার বসিয়েছি । কোন বিক্রেতা যাতে প্রতারণার স্বীকার না হয় তার জন্য আমরা কাউন্টার থেকে টাকা পরীক্ষা করে দেব । কেউ যদি টাকা সনাক্ত করতে চান তাহলে আমরা তা করে দেব।
জেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা কানাই লাল স্বর্ণকার জানান, প্রতিটি কোরবাণির পশুর স্বাস্থ্য স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার জন্য আমরা ৩-৫ সদস্যসের টিম তৈরি করেছি । এ টিম গুলো জেলার বিভিন্ন পশুর হাটে কাজ করছে। কেউ যদি পশুর গায়ে ইনজেকশন বা ক্ষতিকর কোন কিছু পুশ করে মোটা তাজা করে হাটে নিয়ে আসে। তবে সেই পশু পরীক্ষা করে যদিকোন লক্ষণ পাই তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। এ বিষযে হাটে সভা ও মাইকিং করে জানানো হয়েছে।

তিনি আরো জানান, এবার জেলায় পবিবার কেন্দ্রীক ছোট-বড় মিলিয়ে ১১ হাজার ২ শ টি খামার থেকে কোরবাণির স্বাস্থ্য সম্মত পশু হাটে এসেছে। এবার জেলার এ খামার থেকে ১৩ হাজার ৮শ পশু বাইরের হাটে বিক্রির জন্য যাচ্ছে। প্রতিটি ক্রেতায় এবার মান সম্মত পশু ক্রয় করতে সচেতন।

সদরের রামনগর হাটের এক ইজারাদার জানান, এবার দেশি গরু কেনার প্রতি মানুষের ঝোক খুব বেশি। পূর্বের থেকে মানুষ এখন বেশি সচেতন থাকায় তারা দেখে শুনে পশু ক্রয় করছে। হাটে জাল টাকার প্রতারণা থেকে বিক্রেতাদের বাচাতে ইতিমধ্যে ব্যাংক থেকে কাউন্টার বসানো হয়েছে ও পশু স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য জেলা প্রাণি সম্পদ থেকে টিম কাজ করছে ।






মন্তব্য চালু নেই