মেইন ম্যেনু

মাঠের পানি নিষ্কাশনে অবাক প্রোটিয়ারা!

শেরেবাংলার পানি নিষ্কাশনের জন্য ড্রেনেজ সিস্টেম দেখে মুগ্ধ হলেন প্রোটিয়াস ব্যাটসম্যান ডেন ভিলাস।তিনি বলেন, মাঠটা খুবই অবিশ্বাস্যকর। আমরা খুবই আশ্চর্য হয়েছি, এখানে কত ভালভাবে ড্রেনেজ ব্যবস্থা কাজ করে সেটা দেখে!

এদিকে বৃষ্টির কারণে টানা তিনদিন খেলা না হওয়ার কারণে বেশ হতাশ দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটাররা। এ বিষয়ে ডেন ভিলাস বলেন, ‘আমার মনে হয় খুব ভাল বল করেছিলাম আমরা। গত দু’দিন ছিল খুবই হতাশাজনক। তারপরও নিজেদের ঠিকভাবে মেলে ধরার জন্য আমরা অবশ্যই প্রস্তুতি নিয়ে যাচ্ছি। তবে মাঠটা খুবই অবিশ্বাস্যকর।তবে বৃষ্টির কারণে অবশ্যই আমরা খুবই বিরক্ত এবং হতাশ।’

শেরেবাংলার অভিষেক টেস্টের প্রথম দিনটি উইকেটের পেছনে একদম মন্দ কাটেনি ডেন ভিলাসের । জেপি ডুমিনি ও ডিন এলগারের বলে উইকেটে পেছনে তালুবন্দী করেন স্বাগতিকদের দুই গুরুত্বপূর্ণ ব্যাটসম্যান মুমিনুল হক ও মুশফিকুর রহিমকে।

ঢাকা টেস্ট ম্যাচের বৃষ্টির আগ পর্যন্ত বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে ব্যাট করে ৮ উইকেটে ২৪৬ রান করতে পেরেছিল। সে কারণে নিজেদের অবস্থানটা ভাল ছিল বলে দাবি ভিলাসের।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘দেখেন আমরা ভাল অবস্থাতেই ছিলাম। আমাদের ভাল লাগতো যদি কিছুটা খেলতে পারতাম। আমাদের মধ্যে অনেকেই ভারত সফরে যাবে এই দলের হয়ে। আমি জানি এ খেলোয়াড়রা সবাই খুব পেশাদার এবং তাঁরা সবাই আসন্ন সফরের জন্য বেশ প্রস্তুত।’

ভিলাসের প্রতিদ্বন্দ্বিতা ইতোমধ্যেই বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলা কুইন্টন ডি ককের। এ বিষয়ে ভিলাসের মন্তব্য, ‘কুইন্টন খুবই মেধাবী খেলোয়াড়, তিনি চমৎকার পারফর্ম করেছেন এবং আমার কোন সন্দেহ নেই যে তিনি যেকোন সময় একাদশে খেলার মতো যোগ্যতা রাখেন এবং যে কারও ওপর যথেষ্ট চাপ প্রয়োগ করছেন। যেমনটা আমি বলেছি, সবাই দলে ঢুকতে চায় এবং নিজ দেশকে প্রতিনিধিত্ব করতে চায়।’

ঢাকা টেস্টের দ্বিতীয় দিন থেকে শুরু হয়েছে বৃষ্টি। ফলে টানা তিন দিন বৃষ্টির কারণে নিশ্চিত ড্রয়ের পথে রয়েছে ঢাকা টেস্ট। যদিও এই টেস্টের প্রথম দিনটা বৃষ্টি ছাড়া বেশ ভালোভাবেই শেষ হয়েছিল।






মন্তব্য চালু নেই