মেইন ম্যেনু

মাত্র একবার ব্যবহারে খুশকি থেকে মুক্তি

খুশকি খুবই বিরক্তিকর একটি বস্তু। সকলেই খুশকি মুক্ত সুন্দর চুল পেতে মরিয়া। যাদের চুল রুক্ষ ও শুষ্ক তাদের মাথায় খুশকি হয় বেশি। এছাড়াও বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া, ফাংগাস, ছত্রাক ইত্যাদির কারনেও খুশকি হয়ে থাকে।

মার্কেটে এখন খুশকি মুক্ত চুলের জন্য বিভিন্ন শ্যাম্পু পাওয়া যায়। এতে বিভিন্ন ধরনের রাসায়নিক উপাদান ব্যাবহার করা হয়। তাই শ্যাম্পু ব্যাবহার করার আগে প্রাকৃতিক ঔষধ ব্যাবহার করে দেখতে পারেন। এখানে কিছু প্রাকৃতিক ঔষধ সম্পর্কে আলোচনা করা হল। মাত্র একবার ব্যবহারের সাথে সাথে আপনি নিজেই পরিবর্তন লক্ষ্য করতে পারবেন। যেমন-

১। অ্যাসপিরিন:
বিভিন্ন শ্যাম্পুতে খুশকির জন্য যে উপাদানগুলো ব্যাবহার করা হয় অ্যাসপিরিন এ সে উপাদানগুলো বিদ্যামান। ২টি অ্যাসপিরিন গুঁড়া করে পরিমাণমত শ্যাম্পু মিশিয়ে প্রতিবার চুল ধোয়ার সময় ব্যাবহার করুন। পরে শুধু শ্যাম্পু দিয়ে আরেকবার ধুয়ে নিন। এতে খুশকি দূর হবে।

২। খাবার সোডা:
আপনার রান্না ঘরের এই উপাদানটি আপনার খুশকি মুক্ত করতে অনেক কাজে দিবে। প্রথমে চুল ভিজিয়ে নিন। তারপর চুলের গোঁড়ায় আলতো করে ঘষে নিন। তারপর চুল ধুয়ে ফেলুন কিন্তু শ্যাম্পু ব্যাবহার করবেন না। যাদের চুলের গোঁড়ায় ছত্রাক, ফাঙ্গাস বা ব্যাকটেরিয়া রয়েছে তাদের জন্য এই পদ্ধতিটি বেশি উপকারী। প্রথম প্রথম সোডা ব্যাবহার এর ফলে চুল রুক্ষ হতে পারে। ২,৩ সপ্তাহ পর ঠিক হয়ে যাবে। এই পদ্ধতিটি সপ্তাহে ২ থেকে ৩ বার অবলম্বন করতে পারেন।

৩। মুখ ধোয়ার পানীয়:
অতিরিক্ত খুশকি থাকলে মুখ ধোয়ার “মাউথওয়াশ” ব্যাবহার করে দেখতে পারেন। কারন, এতে যে অ্যালকোহল রয়েছে তা খুশকি থেকে মুক্তি দিতে পারে।

৪। লেবু:
খুশকি দূর করার সব থেকে ভালো উপায় আপনার রেফ্রিজারেটরে উপস্থিত। ১ চামচ লেবুর রস নিয়ে সম্পূর্ণ মাথায় মেসাজ করুন। এরপর ধুয়ে ফেলুন। তারপর আবার ১ কাপ পানিতে ১ চামচ লেবুর রস মিশিয়ে সম্পূর্ণ চুল ধুয়ে ফেলুন। এভাবে প্রতিদিন ধুতে থাকুন যে পর্যন্ত না আপনার খুশকি সম্পূর্ণ দূর হয়। লেবুতে যে এসিড রয়েছে তা খুশকি দূর করতে সহায়ক।

৫। লবণ:
খাবার লবণ নিয়ে তা চুলের গোঁড়ায় ঘষে নিন। পরে শ্যাম্পু দিয়ে তা ধুয়ে ফেলুন।

খুশকি মুক্ত ও সুন্দর চুলের জন্য প্রয়োজন নিয়মিত পরিচর্যা। তাই চুলের যত্ন নিন সঠিকভাবে।






মন্তব্য চালু নেই