মেইন ম্যেনু

মাত্র ২টি উপাদানে তৈরি করে ফেলুন রূপচর্চায় জরুরী “রোজ এসেন্সিয়াল অয়েল”

রোজ এসেন্সিয়াল অয়েলের নাম আমরা প্রায়ই শুনে থাকি। রূপচর্চার পাশাপাশি এটির অনেক স্বাস্থ্যগত উপকারিতা আছে। buzzle.com ত্বকের যত্নে রোজ এসেন্সিয়াল অয়েলের ব্যবহার সম্পর্কে বলেছে।

১। শুষ্ক ত্বকে ময়োশ্চারাইজারের কাজ করে থাকে রোজ এসেন্সিয়াল অয়েল।

২। তৈলাক্ত ত্বকের টোনার হিসেবে কাজ করে রোজ এসেন্সিয়াল অয়েল।

৩। এটি ত্বকের বলিরেখা, বয়সের ছাপ দূর করে থাকে।

৪। এতে অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদান আছে যা ত্বকের ইনফেকশন রোধ করে ব্রণ প্রতিরোধ করে থাকে।

৫। সেনসেটিভ বা সংবেদনশীল ত্বকের একটি ঠান্ডাভাব এনে দিয়ে থাকে।

৬। এটি ব্রণের সমস্যা দূর করে ত্বকের কালো দাগ দূর করতে সাহায্য করে থাকে।

৭। দেহের কোন স্থানে কেটে গেলে সেখান রোজ এসেন্সিয়াল অয়েল লাগিয়ে রাখুন। রক্তপাত সাথে সাথে বন্ধ হয়ে যাবে। এমনকি জীবাণু সংক্রামন থেকে রোধ করবে।

৮। স্টার্চ মার্ক দূর করতেও এটি বেশ কার্যকরী।

৯। অ্যারোমা থেরাপি হিসেবে রোজ এসেন্সিয়াল অয়েল ব্যবহার করা হয়।

১০। ত্বকে রক্ত চলাচল সচল রেখে ত্বক সুস্থ ও সতেজ রাখতে সাহায্য করে থাকে রোজ এসেন্সিয়াল অয়েল।

এই রোজ এসেন্সিয়াল অয়েল ঘরে তৈরির করা যায় খুব সহজে। অল্প কিছু উপাদান দিয়ে তৈরি করা যায় রোজ এসেন্সিয়াল অয়েল। রোজ এসেন্সিয়াল অয়েল তৈরি সহজ উপায়টি জানা যায় hellonatural.co থেকে।

যা যা লাগবে

১ কাপ গোলাপের পাপড়ি

১ কাপ বাদাম তেল

একটি বোতল

যেভাবে তৈরি করবেন

-গোলাপের পাপড়ি তেলের মাঝে ভাল করে মিহি কুচি করে দিয়ে দিন।

-পাপড়ি সহ তেল কিছুক্ষণ গরম করুন, কাঠের চামচ দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়ুন।

-এবার এটি এক সপ্তাহের জন্য রেখে দিন। তারপর ছেঁকে নিলেই তৈরি আপনার এসেন্সিয়াল অয়েল।

যেভাবে ব্যবহার করবেন

-ক্রিমে বা ফেইস প্যাকে কয়েক ফোঁটা রোজ এসেন্সিয়াল অয়েল মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন।

-ঠান্ডা পানিতে কয়েক ফোঁটা রোজ অয়েল মিশিয়ে টোনার হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন।

-অলিভ অয়েল বা বাদাম তেলে ১০-১২ ফোঁটা রোজ অয়েল মিশিয়ে ত্বকের ব্যবহার করুন। এটি বলিরেখা, বয়সের ছাপ দূর করতে সাহায্য করবে।

-বডি লোশনের সাথে রোজ অয়েল মিশিয়ে বডি ম্যাসাজ করতে পারেন। এটি ত্বকে রক্ত চলাচল সচল রাখে।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই