মেইন ম্যেনু

মাত্র ৪টি সমস্যা ধ্বংস করে দিতে পারে আপনার বিয়ের সম্পর্ক

বিয়ে একটি জটিল সম্পর্কের নাম। দুইজন মানুষ তাদের আজন্ম অভ্যাস থেকে বেরিয়ে এসে একেবারে নতুন ভাবে সাজায় তাদের প্রতিটি দিন, প্রতিটি মূহুর্ত। আগে যেখানে মানুষটি শুধু নিজের দায়িত্ব নিতেন এখন তাকে নিতে হয় আরেকটি মানুষের দায়িত্ব, এমনকি ওপর মানুষটির পরিবারেরও। বাগানে মালি যেমন অতি যত্নে বড় করেন গাছ, ফোটান ফুল বিয়ের সম্পর্কেরও প্রয়োজন সেরকম যত্নের, মনোযোগের, ভালোবাসার। ছোট ছোট সমস্যা যেগুলোর দিকে আপনি হয়ত নজরই দিচ্ছেন না, ভাবছেন ‘ সব স্বামী-স্ত্রীর মাঝেই হয়’, হয়ত এই সমস্যাগুলোই আপনার বিয়েকে নিয়ে যাচ্ছে ধ্বংসের দিকে।

১। আপনি যখন আর সঙ্গী থাকেন না
আপনি এবং আপনার স্বামী বা স্ত্রী আপনারা একটি টিম। বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার পর আপনাদের জীবনের সকল সিদ্ধান্ত একসাথে নেওয়ার কথা। পারস্পরিক মতামতের প্রতি শ্রদ্ধা রাখা, যে কোন সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে আলাপ করে নেওয়া, একে অন্যের সুবিধা-অসুবিধার দিকে নজর দেওয়া সবই একটি সম্পর্ককে সুন্দর রাখে , সচল রাখে। এগুলোই আপনাদেরকে পরস্পরের পারফেক্ট সঙ্গী করে।

আপনি বা আপনার সঙ্গী যদি একাই সব সিদ্ধান্ত নিতে থাকেন তাহলে সম্পর্কের মধুরতা নষ্ট হয়। অভিযোগ, অভিমান জমতে থাকে মনে।

২। দোষারোপ করা
অভিযোগ, দোষারোপ ধ্বংস করে দেয় সম্পর্ককে। জীবনে উথানপতন থাকবেই। কখনো আর্থিক অবস্থার উন্নতি হয়। কখনো অবনতিও হতে পারে। অপ্রত্যাশিত দূর্ঘটনার শিকার হতে পারে আপনার সঙ্গী। আপনি যখন তাকে ভালবাসেন তখন আপনি তার পাশে থাকেন নিঃস্বার্থভাবেই। কোন প্রত্যাশা বা অভিযোগ ছাড়াই।

অভিযোগ শুধু যে বড় দূর্যোগে দানা বাঁধে তা কিন্তু নয়। অনেক সময় অন্যদের জীবনযাপনের সাথে নিজের জীবনের তুলনা করা, সঙ্গীকে তুলনা করা, নিজের ক্যারিয়ার, সঙ্গীর আর্থিক অবস্থান নিয়ে অসন্তুষ্টিতে ভোগা ইত্যাদি অভিযোগের জন্ম দেয় এবং সৃষ্টি করে কখনোই মিমাংসা না হওয়া সমস্যার।

৩। আপনি যখন আত্মকেন্দ্রিক হয়ে যান
আপনি যখন শুধু নিজের কথা চিন্তা করেন তখনই ঘুণ ধরতে শুরু করে আপনার সম্পর্কে। কীভাবে বুঝবেন আপনি আত্মকেন্দ্রিক হয়ে উঠছেন কিনা? খেয়াল করুন, আপনি ঝগড়া বা বাক বিতন্ডায় কীভাবে নিজের কথা বলছেন। “আর আমি যা চাই তার কী হবে?” “কেন আমাকেই সবসময় চিন্তা করতে হবে?” “তুমি আমার জন্য কী করেছ?” এই প্রশ্নগুলোর প্যাটার্ণে ‘আমি’র প্রাধান্য সহজেই চোখে পড়ে।

সম্পর্কে ‘আমি’ নয়, ‘আমরা’ খুব জরুরি। দুইজনের মাঝেই আমিত্ব বেড়ে গেলে তা অহমের দ্বন্দে রূপ নেয়। হুমকীর মুখে পড়ে বিয়ে।

৪। মাদলাসক্তি
মাদকাসক্তি একটি সুন্দর সম্পর্ককে একেবারে নিঃশেষ করে দেয়। এক্ষেত্রে আপনাদের দুজনেরই কথা বলা উচিৎ। প্রয়োজনে পরিবারের সাহায্য নিন। মাদকাসক্তি নিরাময়ের ব্যবস্থা নেওয়া খুবই জরুরি। কিন্তু কোন আলোচনাই সফল হবে না যদি মাদকাসক্ত ব্যক্তি নিজে আগ্রহী না হন।

সমস্যাগুলোকে গুরুত্বহীন ভাববার ভুল করবেন না। আজই মনোযোগ দিন এবং সমাধান করার চেষ্টা করুন। সহনশীলতা এক্ষেত্রে হবে আপনার সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ বন্ধু।






মন্তব্য চালু নেই