মেইন ম্যেনু

মানব সভ্যতার ভয়ঙ্করতম ১০ যুদ্ধ

ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে প্রায় যুদ্ধ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। যুদ্ধ কখনওই কাম্য নয়। যুদ্ধের ফল যে কখনও সুখের হয় না, অতীতে ফিরে তাকালেই তা দেখা যায়। ইতিহাসের পাতা থেকে রইল তেমনই কিছু ভয়াবহ যুদ্ধ, যেগুলিতে প্রাণ গিয়েছিল অসংখ্য মানুষের।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ
সাল: ১৯১৪-১৯১৮, মৃত অন্তত: ১ কোটি ৫০ লক্ষ থেকে ৬ কোটি ৫০ লক্ষ।
মূলত ইউরোপ কেন্দ্রীক এই যুদ্ধে লড়াই করেছিলেন প্রায় ৭ কোটি সেনা।
এদের মধ্যে প্রায় এক কোটির মৃত্যু হয়।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ
সাল: ১৯৩৯-১৯৪৫, মৃতের সংখ্যা: ৪ কোটি থেকে ৭ কোটি ২০ লক্ষ।
১ সেপ্টেম্বর, ১৯৩৯ সালে হিটলার পোল্যান্ড দখল করেন।
এর দু’দিন পরেই ফ্রান্স এবং ব্রিটেন জার্মানির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে।
আস্তে আস্তে তা বিশ্বযুদ্ধের রূপ নেয়।

তাইপিং বিদ্রোহ
সাল: ১৮৫১-১৮৬৪, মৃত অন্তত: ২ কোটি।
চিনের সবচেয়ে বড় গৃহযুদ্ধ।
জিং সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে এই গৃহযুদ্ধে অন্তত দু’কোটি মানুষের
মৃত্যু হয় যার বেশির ভাগই ছিলেন সাধারণ মানুষ।

মোঙ্গল শাসনকাল
সাল: ১২০৭-১৪৭২, মৃতের সংখ্যা: ৩ কোটি থেকে ৬ কোটি।
প্রায় দু’শো বছর স্থায়ী ছিল মোঙ্গল সাম্রাজ্য।
পূর্ব ইউরোপ থেকে জাপান এবং সাইবেরিয়া থেকে
দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল এই সাম্রাজ্য।
ভয়ঙ্কর মোঙ্গলদের আক্রমণে এই সব অঞ্চলে
সব মিলিয়ে মারা গিয়েছিলেন প্রায় ছ’কোটি মানুষ।

লুসান রেবেলিয়ন
সাল: ৭৫৫-১৭৬৩, মৃতের সংখ্যা: ১ কোটি ৩০ লক্ষ থেকে ৩ কোটি ৬০ লক্ষ।
চিনে ট্যাঙ্গ এবং ইয়ান রাজবংশের মধ্যে সিংহাসন দখলের
এই লড়াইয়ে মৃত্যু হয়েছিল প্রায় দু’কোটি মানুষের।

কুইঙ্গ সাম্রাজ্যের পতন
সাল: ১৬১৬- ১৬৬২, মৃতের সংখ্যা: ২কোটি ৫০ লক্ষ।
চিনের সর্বশেষ রাজবংশ হল কুইঙ্গ।
মিঙ্গদের আক্রমণে এই রাজবংশের পতন হয়।
সেই যুদ্ধে মৃত্যু হয়েছিল প্রায় আড়াই কোটি মানুষের।

তৈমুর লং
সাল: ১৩৬৯-১৪০৫, মৃতের সংখ্যা: ১ কোটি ৫০ লক্ষ থেকে ২ কোটি।
মোঙ্গল সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠা করার জন্য বিভিন্ন দেশের সঙ্গে যুদ্ধ করেন তৈমুর লং।
ভয়ঙ্কর তৈমুরের হাতে মৃত্যু হয়েছিল প্রায় দু’কোটি মানুষের।

দুনগান অভ্যুত্থান
সাল: ১৮৬২- ১৮৭৭, মৃতের সংখ্যা: ৮০ লক্ষ থেকে ১ কোটি ২০ লক্ষ।
চিনে দুনগান জাতি বিদ্রোহ ঘোষণা করেছিল কুইঙ্গ রাজবংশের বিরুদ্ধে।
গৃহযুদ্ধে মৃত্যু হয় প্রায় এক কোটি মানুষের।
বিদ্রোহ ব্যর্থ হওয়ায় চিন থেকে নির্বাসিত করা হয় তাদের।

রাশিয়ার গৃহযুদ্ধ
সাল: ১৯১৭-১৯২১, মৃতের সংখ্যা: ৫০ লক্ষ থেকে ৯০ লক্ষ।
বলশেভিক পার্টির অভ্যুত্থান এবং ক্ষমতা দখলের
সেই গৃহযুদ্ধে মৃত্যু হয়েছিল প্রায় ৯০ লক্ষ মানুষের।

নাপোলিওনিক যুদ্ধ
সাল: ১৮০৩ থেকে ১৮১৫, মৃতের সংখ্যা: ৩৫ লক্ষ থেকে ৭০ লক্ষ।
এক সঙ্গে একাধিক দেশ নেপোলিয়নের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছিল সেই সময়ে।
প্রায় বারো বছর ধরে বিভিন্ন সময়ে চলা সেই যুদ্ধে মৃত্যু
হয়েছিল প্রায় ৭০ লক্ষ মানুষের।-আনন্দবাজার






মন্তব্য চালু নেই