মেইন ম্যেনু

মানুষের কঙ্কালভর্তি বিমান

ফিলিপাইন থেকে কিছুটা দুরবর্তী একটা দ্বীপে মালয়েশিয়ান পতাকাবাহী একটি কঙ্কালভর্তী বিমানের ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে এটি নিখোঁজ হওয়া মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের এমএইচ ৩৭০ যাত্রীবাহী বিমান। তবে গণমাধ্যম জানিয়েছে, এটি এমএইচ৩৭০ কিনা এ বিষয়ে এখনও নিশ্চিত করে কিছু জানা যায়নি। তদন্ত শেষে নিশ্চিত হওয়া যাবে।

স্থানীয় এক নারী ওই বিমানের ধ্বংসাবশেষ পেয়েছেন। তিনি জানান, ওই দ্বীপের ঘন জঙ্গলের প্রায় অর্ধেক অংশ জুড়ে বিমানের বিভিন্ন ক্ষুদ্র যন্ত্রাংশ ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল। ওই নারী এবং অপর কয়েকজন দ্বীপের ওই ঘন জঙ্গলে তখন পাখি শিকার করছিলেন। হঠাৎ তাদের নজরে এলো মালয়েশিয়ান পতাকা এবং বিমানের একটি পাখার অংশ। তারা কাছে গিয়ে দেখলেন বিমানের প্রচুর ভাঙ্গা যন্ত্রাংশ ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে আছে। এবং ভাঙ্গা অংশের ভিতর অনেকগুলো মানুষের কঙ্কাল। বোর্নিয় দ্বীপের পুলিশ কমিশনার জালাল উদ্দিন আহমেদ রহমানও এ বিষয়ে নিশ্চিত করেন।

2015_10_12_22_05_00_4t7k5Wl8KKygen8pB8VVhMdFjN2RLG_original

৭০ ইঞ্চি দৈর্ঘ্য এবং ৩৫ ইঞ্চি প্রস্থ বিশিষ্ঠ একটি মালয়েশিয়ান পতাকা পাওয়া যায় বিমানের ওই ধবংসাবশেষ থেকে।

এদিকে মালয়েশিয়ান পুলিশ এবং তদন্ত কর্মকর্তারা এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি। এর আগে ভারত মহাসাগরে রিইউনিয়ন দ্বীপেও এরকম একটি ভাঙ্গা বিমানের অংশ পাওয়া গিয়েছিল। সেটিকেও মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের এমএইচ৩৭০ এর অংশ বলে ধরে নেওয়া হয়েছিল।

কয়েকজন তদন্ত কর্মকর্তা জানান, হতে পারে এই দ্বীপ থেকেই রিইউনিয়ন দ্বীপে পাওয়া ওই অংশটি ভেসে গিয়েছিল। কিন্তু এখনই নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না। তদন্ত শেষে সবকিছু জানা যাবে।

উল্লেখ্য গতবছর মার্চে ২৩৯ জন যাত্রী নিয়ে মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের এমএইচ ৩৭০ এয়ারবাসটি কুয়ালালামপুর থেকে চীনের বেইজিং যাওয়ার পথে নিখোঁজ হয়। ওই বিমানটিকে নিয়ে রহস্যের জট আজও খুলেনি।






মন্তব্য চালু নেই