মেইন ম্যেনু

মানুষের ক্ষতি করলে বরদাশত করব না : প্রধানমন্ত্রী

মানুষের ক্ষতি করলে সরকার বরদাশত করবে না বলে হুশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে আয়োজিত এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানে হরতাল-অবরোধে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তার চেক হস্তান্তরকালে এ কথা বলেন।

চলতি বছরের শুরুতে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের রাজনৈতিক কর্মসূচির সময় পেট্রোল বোমায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে হতাহত এবং ক্ষতিগ্রস্ত বাস মালিকদের এই আর্থিক সহায়তার চেক প্রদান করা হয়। সহিংসতায় নিহত ১৫ জনের পরিবারের ৩০ জন সদস্য, আহত ৭ জন ও ১৮৫ জন ক্ষতিগ্রস্ত গাড়ি মালিককে ৮ কোটি ৩৭ লাখ ৫৯ হাজার টাকার সহায়তার চেক তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘স্বাধীন দেশে স্বাধীনভাবে মানুষ চলাফেরা করবে, নিজের জীবনকে উন্নত করবে- এটাই তো মানুষের কাম্য। আর সেখানে যদি এভাবে মানুষের ক্ষতি করা হয়, তা আমরা বরদাশত করবো না।’

বিএনপি-জামায়াত জোটের উদ্দেশে পরোক্ষ ইঙ্গিত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যারা এভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে, তাদের শাস্তির ব্যবস্থা আমরা করব। তাদের কেউ রেহাই পাবে না।’

তিনি বলেন, ‘তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা ইতিমধ্যে আমরা নিতে শুরু করেছি। দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি যদি না দেওয়া হয়, তাহলে ভবিষ্যতে এ ধরনের কর্মকা- করার সাহস পাবে। ভবিষ্যতে এভাবে যেনো মানুষকে ক্ষতিগ্রস্ত করার সাহস না পায়, সেই ধরনের শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। আমরা তাই করবো।’

ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তা দেওয়ার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘আমরা সরকারের পক্ষ থেকে চেষ্টা করেছি আপনাদের সহযোগিতা করতে, আপনাদের পাশে দাঁড়াতে। আমি জানি, যে ক্ষতি আপনাদের হয়েছে, সেটা পুরন করা সম্ভব না। তারপরও আমাদের একটা চেষ্টা রয়েছে, জনগণের পাশে দাঁড়ানোর, সহযোগিতা করার।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ব্যক্তিস্বার্থ চরিতার্থ করতে মানুষের এত বড় ক্ষতি কেউ কখনো করতে পারে, তা কল্পনাও করা যায় না। রাজনীতি করি জনগণের স্বার্থে, জনগণের কল্যাণে, জনগণের মঙ্গলের জন্য। জনগণকে পুড়িয়ে মারা, জনগণের জানমালের ক্ষতি করা- সেটা কোনো রাজনীতি নয়। এটা জঙ্গিবাদী কর্মকাণ্ড, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড। বিএনপি-জামায়াত জোট সেটাই করেছে।’

এ সময় উপস্থিত ছিলেন নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান, সমবায় ও পল্লী উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙা, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্লাহ, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম।






মন্তব্য চালু নেই