মেইন ম্যেনু

শিশু রাজন হত্যা :

মামলার তদন্তই শেষ করতে পারেনি ডিবি

৭২ ঘণ্টার মধ্যে শিশু সামিউল আলম রাজন হত্যা মামলার অভিযোগপত্র দাখিলের ঘোষণা দিয়েছিলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। আইনমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী আজ শনিবার পার হচ্ছে ৭২ ঘণ্টা। কিন্তু মামলার অভিযোগপত্র দাখিল তো দূরের কথা এখন পর্যন্ত তদন্ত কাজই শেষ করতে পারেনি সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ- ডিবি।

গত ১২ আগস্ট ঢাকার হোটেল সোনারগাঁওয়ে একটি অনুষ্ঠানে আইনমন্ত্রী গণমাধ্যমকে জানান, রাজন হত্যা মামলার অন্যতম আসামি কামরুল ইসলাম পলাতক থাকলেও এই মামলার বিচারকাজ শুরু করতে কোনো বাধা নেই। আলোচিত এই হত্যা মামলার অভিযোগত্র ৭২ ঘণ্টার মধ্যেই দেয়া হবে।

ঘোষণা অনুযায়ী ৭২ ঘণ্টা শেষ হতে চললেও শনিবার সকাল পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোনো প্রস্তুতিই নিতে পারেনি পুলিশ। সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, এখনও মামলার তদন্ত চলছে। অভিযোগপত্র কবে দাখিল হবে তা-ও সঠিকভাবে বলতে পারছেন না তারা।

সিলেট সদর উপজেলার কুমারগাঁও এলাকায় দোকান ঘরের খুঁটির সাথে বেঁধে পৈশাচিক নির্যাতন করে হত্যা করা হয় ১৩ বছরের শিশু সামিউল আলম রাজনকে। ঘাতকরা নির্যাতনের সঙ্গে ভিডিও ধারণের পাশাপাশি উল্লাসেও মেতে উঠে। রাজন হত্যার ধারণকৃত ভিডিও নিয়ে সিলেটসহ পুরো দেশে তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

আলোচিত এ হত্যাকাণ্ডের এক মাস পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত দেশে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয়নি মামলার অন্যতম আসামি কামরুল ইসলামকে। এসব কারণে ন্যায় বিচার নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে রাজনের পরিবারের মধ্যে। রাজন হত্যার ধারণকৃত ভিডিও নিয়ে সারাদেশে তোলপাড় সৃষ্টি হলে ক্ষোভে রাজপথে নামে সাধারণ মানুষ।

এরপর একে একে হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত অধিকাংশ আসামিকে ধরে পুলিশের হাতে দেয় এলাকাবাসী। আলোচিত এ হত্যাকাণ্ডের পর রাজনের বাড়িতে গিয়ে সমবেদনা জানান সরকারের একাধিক মন্ত্রী ও এমপি। সাহায্যও করেন রাজনের পরিবারকে। সেই সঙ্গে সহযোগিতা করার জন্য এগিয়ে আসেন প্রবাসীসহ সিলেটের স্থানীয় বাসিন্দারাও। এমনকি মন্ত্রী ও এমপিরা আশ্বাস দেন দ্রুত হত্যা মামলার নিষ্পত্তির।

আলোচিত এ হত্যা মামলায় এরই মধ্যে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন ৮ জন। তবে ১ মাসেও আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল না করায় বিচার পাওয়া নিয়ে সংশয় রয়েছে রাজনের পরিবারে।

রাজনের পিতা আজিজুল আলম বলেন, আমার ছেলে হত্যার বিচার দ্রুত হবে কিনা সেজন্য আমি আতঙ্কের মধ্যে রয়েছি।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের মূখপাত্র ও অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (উত্তর) রহমত উল্লাহ বলেন, তদন্ত কাজ এখনও অব্যাহত আছে। আমরা আশাবাদি খুব দ্রুতই এ হত্যা মামলার অভিযোগপত্র দাখিল করা হবে।

আইনমন্ত্রী প্রতিশ্রুতি সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মন্ত্রী মহোদয়ই এই বিষয়ে ভালো জানেন।






মন্তব্য চালু নেই