মেইন ম্যেনু

মালেকের বাড়িতে অলৌকিক গাভীর সন্ধান!

ঠাকুরগাওয়ের রাণীশংকৈল নেকমরদ গন্ডগ্রামের আব্দুর মালেকের বাড়িতে এক অলৌকিক গাভীর সন্ধান পাওয়া গেছে। গাভিটির বয়স সাড়ে ৩ বছর। ইতিপুর্বে এর কোন বাচ্চা হয়নি। গাভিটি প্রথম বারের মতো ৬ মাস গর্ভবতী রয়েছে। ব্যাপারটি অবিশ্বাস্য হলেও সত্য গর্ভধারনের ২ মাস পর থেকেই প্রতিনিয়ত ৩ কেজির উপর দুধ দিয়ে আসছে।

গাভির মালিক আব্দুল মালেক জানায়, ১০ বছর আগে একটি বিদেশী জাতের গাভি কিনে আনি। গাভিটির প্রথম বাচ্চা নষ্ট হয়ে যায়। মা গাভিটির দ্বিতীয়বার এক সাথে দুইটি বাচ্চা হয়। অলৌকিক গাভিটি তার মধ্যে একটি। গাভিটি গর্ভধারণের ২ মাসের মাথায় দুধের সামাড় বড় হতে থাকলে ডাক্তারের স্মরণাপন্ন হয় গাভির মালিক। প্রাণীসম্পদ বিভাগের ডাঃ রামকৃষ্ণ ও ডাঃ মোঃ জুয়েল গরুর মালিককে দুধ দহনের পরামর্শ দেন। পরামর্শক্রমে প্রতিদিন সাড়ে ৩ কেজি ছেকা হয়।

গাভি পালনকারী খায়রুন নেছা বলেন, গাভির দুধ স্বাভাবিক তবে অন্য দুধের চেয়ে একটু গাঢ় ও স্বাধ বেশি।

অলৌকিক গাভিটিকে দেখার জন্য প্রতিদিন লোকজন ভিড় জমাচ্ছে। অভাবি সংসার হওয়ায় ঠিকমতো খাবার দিতে পারছেনা তারা। ঠিকমতো খাবার দিতে পারলে আরো বেশি পরিমান দুধ পাওয়া যেত বলে পরিবারের লোকজনের ধারণা। বিষয়টি এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। এলাকার ষাটোর্ধ বয়সী নুরুল হক জানান আমার বয়সে এমনটি আমি দেখিনি।

উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ সিরাজুল ইসলাম বলেন, হরমোন জনিত কারণে গাভিটি দুধ দিচ্ছে। এটি আল্লাহর দান।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই