মেইন ম্যেনু

মাশরুম-এর চমকপ্রদ স্বাস্থ্য উপকারিতা

বিজ্ঞানের একটি দীর্ঘ প্রচেষ্টার সমৃদ্ধ ছত্রাক হচ্ছে মাশরুম। বর্তমানে এটি পরিছন্ন পরিবেশে ও বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে চাষ করা সুস্বাদু, পুষ্টিকর এবং ভেষজগুণে ভরপুর ক্লোরোফিল বিহীন উদ্ভিদ এবং এক প্রকার সবজি হিসেবেই অধিক পরিচিত।

মাশরুম অত্যান্ত পুষ্টিগুণসম্পন্ন একটি খাবার। এর পৌষ্টিক মান এর কারণে খেতে পারেন যে কোনো ভাবে। মাশরুম কম ক্যালোরি এবং উচ্চ ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার যাতে আছে প্রচুর পরিমাণে গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন এবং খনিজ পদার্থ। এতে শর্করা রোধক বেশ কিছু উপাদানও রয়েছে।

চলুন জেনেনেই কেনো মাশরুম খাওয়া উচিৎ এবং এটা আমাদের শরীরের কি কি উপকার সাধন করে:

ক্যান্সার প্রতিরোধ:
মাশরুমকে ক্যান্সারের প্রতিরোধক এবং নিরাময়ক হিসেবে মনে করা হয়। মাশরুমে পরিমিত মাত্রায় সেলেনিয়াম থাকে যা, কোষের ক্ষতি প্রতিরোধ এবং ক্যান্সার এবং অন্যান্য রোগের ঝুঁকি হ্রাস করে। ক্যান্সার রিসার্চ ইউকে এবং ইউনিভার্সিটি অব স্টার্থক্লাইড জাপানি গবেষণা বিষয়ক একটি রিভিউ থেকে জানায় যে, বিশেষ প্রজাতির কিছু মাশরুম কেমোথেরাপি এবং রেডিয়েশনজনিত বিরূপ প্রতিক্রিয়ায় ভূমিকা রাখে।

ডায়াবেটিস প্রতিরোধ:
ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীদের জন্য মাশরুম একটি আদর্শ খাবার। ফ্যাট ও শর্করা কম এবং আঁশ বেশি থাকায় বহুমুত্র বা ডায়াবেটিস রোগীর জন্য মাশরুম বিশেষ উপকারী ও ডায়াবেটিস রোগীদের আদর্শ খাবার। নিয়মিত খেলে ব্লাড সুগার কমিয়ে আনা সম্ভব।

হৃদরোগ প্রতিরোধে:
মাশরুমে কোলেস্টরেল কমানোর অন্যতম উপাদান ইরিটাডেনিন, লোভাষ্টটিন, এনটাডেনিন, কিটিন এবং ভিটামিন বি,সি ও ডি থাকায় নিয়মিত মাশরুম খেলে উচ্চ রক্তচাপ (হাই ব্লাড প্রেসার) ও হৃদরোগ নিরাময় হয়।

ইমিউন সিস্টেম উন্নয়ন:
মাশরুম যে ইমিউন সিস্টেমের জন্য খুবই উপকারী তাতে সন্দেহ নেই। ইমিউন সিস্টেম জীবের এমন এক ধরনের জৈবিক প্রক্রিয়া- যার মাধ্যমে দেহ যেকোনো রোগের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে।

ওজন নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে:
প্রাণিজ প্রোটিনের মতো এতে কোলস্টেরল না থাকায় এবং ফ্যাট কম থাকায় সব বয়সের মানুষের জন্য এবং রোগীদের জন্যও আদর্শ খাবার। কলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে এবং পরিপাক সিস্টেমের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

মাশরুম সুস্বাদু, পুষ্টিকর ও ঔষধি গুণসম্পন্ন এক ধরনের অভিজাত সবজি। বর্তমানে বাংলাদেশে বিভিন্ন জাতের মাশুরুম চাষ হচ্ছে। মাশরুম দ্বারা জ্যাম, জেলি, আচার, ইত্যাদি তৈরি করা যায়। রুপ চর্চাতেও মাশরুমের ব্যবহার আছে। মুখের কাল দাগ দূর করা, মুখের রঙ উজ্জল করা, ত্বকের তৈলাক্ত ভাব দূর করা ও চুল পড়া রোধ করা ইত্যাদিতে পাউডার মাশরুম অত্যন্ত উপকারি।-সূত্র: মেডিক্যাল নিউজ।






মন্তব্য চালু নেই