মেইন ম্যেনু

মাস্টার্সের কার্যক্রম থেকে জবির ৩ শিক্ষককে অব্যাহতি

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক মীর মোশারেফ হোসেন (রাজীব মীর), বর্ণনা ভৌমিক ও প্রিয়াঙ্কা স্বর্ণকারকে বিভাগের মাস্টার্স শ্রেণির একাডেমিক ও অন্যান্য কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি দিয়ে অফিস আদেশ জারি করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বিভিন্ন অভিযোগ পাওয়ার পর বিষয়টি খতিয়ে দেখতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারারকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটি প্রাথমিকভাবে অভিযোগের সত্যতা পেয়ে গত মঙ্গলবার রাজীব মীরসহ তিন শিক্ষককে পরবর্তী আদেশ না দেওয়া পর্যন্ত মাস্টার্সের সব কার্যক্রম থেকে বিরত থাকতে নির্দেশ দিয়েছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার ও তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক মো. সেলিম ভূঁইয়া বলেন, সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কাছে শিক্ষক রাজীব মীরের বিরুদ্ধে নৈতিক স্খলন, অনৈতিক প্রস্তাব, হুমকি প্রদানসহ নানা বিষয়ে শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেছেন।
তিনি আরও বলেন, তদন্ত কমিটি নিরপেক্ষভাবে কাজ করছে। তিন সপ্তাহের মধ্যে এ কমিটি তাদের প্রতিবেদন জমা দেবে।

রাজীব মীর ছাড়া অন্য দুই শিক্ষক বর্ণনা ভৌমিক ও প্রিয়াঙ্কা সরকারকেও অব্যাহতি দেওয়া কারণ তদন্ত কমিটি সূত্রে জানা গেছে, রাজীব মীর অভিযোগকারী এক ছাত্রীকে হুমকি দিয়ে বলেছিলেন, ‘তার কথা না শুনলে ওই দুই শিক্ষকও তাকে নম্বর কম দেবে। এইসব কথোপকথনের মোবাইল রেকর্ডিং তদন্ত কমিটির হাতে রয়েছে।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বলেন, ‘অভিযোগকারী শিক্ষার্থীরা যাতে কোনও রকম ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সে দিক বিবেচনা করেই এই তিন শিক্ষককে সাময়িক অব্যহতি দেওয়া হয়েছে। তবে তদন্ত কমিটি কাজ করছে। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত এই কমিটিই দেবে।’

এর আগে ২০১৪ সালের ৬ এপ্রিল নিয়মিত ক্লাস না করা, ছাত্রীদের সঙ্গে অবৈধ সম্পর্কে জড়ানো, জঙ্গিবাদের মদদ দেওয়াসহ নানা অভিযোগ এনে সাধারণ শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাজীব মীরকে অপসারণ করার দাবিতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান করেছিলেন।

অন্যদিকে গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, অনৈতিক প্রস্তাব দেওয়ায় ২০০৪ সালের ২৯ মার্চ রাজীব মীরকে তার তৎকালীন কর্মস্থল চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শামসুন্নাহার হলে ছাত্রীরা অবরুদ্ধ করে রেখেছিলেন। এছাড়া তার বিরুদ্ধে ‘দখলদার’ ছাত্রদলের পক্ষ নেওয়ার অভিযোগও ছিল।

অভিযুক্ত শিক্ষক রাজীব মীর বলেন, আদেশের কপি আমার হাতে এসে পৌঁছেনি, তবে ডিপার্টমেন্টে গেছে বলে শুনেছি।

এটা তার বিরুদ্ধে একটি ষড়যন্ত্র বলে তিনি মন্তব্য করেন।






মন্তব্য চালু নেই