মেইন ম্যেনু

“মাহে রমজানের পবিত্রতা রক্ষায় কার্যকরি উদ্যোগ নিতে হবে”

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর কেন্দ্রীয় নেতা ও ঢাকা মহানগরীর সাবেক সভাপতি অধ্যাপক মাওলানা এটিএম হেমায়েত উদ্দিন বলেছেন, রমজান মাসকে সামনে রেখে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের মূল্যবৃদ্ধিতে জনজীবন চরম দুর্বিষহ করে তুলেছে। এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী রমজানকে সামনে রেখে একদিকে ইবাদত বন্দেগী করে অপরদিকে জিনিসপত্রের দাম বাড়িয়ে অতিরিক্ত মুনাফা আদায় করে। এমন ইবাদত আল্লাহর কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। তাই মূল্য বৃদ্ধি খাদ্যে ভেজাল বন্ধ করতে হবে। মাহে রমজানের সম্মানে সব ধরণের গর্হিত কাজ থেকে বিরত থাকতে ও রাখতে সরকারকে কার্যকরি উদ্যোগ নিতে হবে। তিনি বলেন, নাস্তিক্যবাদী পাঠ্যসূচি স্থগিত করে নতুন পাঠ্যসূচি প্রণয়ন না করলে পরবর্তী কর্মসূচি সর্বাত্মক আন্দোলনের ডাক দেয়া হবে।

রবিবার (৫ জুন) বিকেলে পুরানা পল্টন হাউজ বিল্ডিংয়ের সামনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগরী রমজানের পবিত্রতা রক্ষার দাবিতে আয়োজিত মিছিল পূর্ব সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। মহানগর সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূূম, উত্তর সভাপতি মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ, দক্ষিণ সেক্রেটারী মাওলানা এবিএম জাকারিয়া, এইচ এম সিদ্দিকুর রহমান ও এইচ এম সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

অধ্যাপক হেমায়েত উদ্দিন আরো বলেন, ৯২ ভাগ মুসলমানের দেশে রমজানের পবিত্রতা ব্যাহত হলে ঈমানদার জনতা ঈমান রক্ষায় রমজান মাসেও আন্দোলনে নামিতে বাধ্য হবে। সকল দিক থেকে রমজানের মাহাত্ব ও গুরুত্ব অপরিসীম হলেও রমজানের মর্যাদা আমাদের দেশে চরমভাবে ভুলুন্ঠিত। রমজানের পবিত্রতা রক্ষায় রাষ্ট্রীয়ভাবেও কোন উদ্যোগ নেই। যার ফলে রমজান মাসেও একদল মুনাফাখোর ও ব্যবসায়ী রমজানকে মুনাফালুটার মুখ্যম সময় মনে করে মূল্যবৃদ্ধিসহ খাদ্যে ভেজাল দেয়া শুরু করে। নিত্যপ্রয়োজনী দ্রব্যাদির কৃত্রিম সঙ্কট সৃষ্টি করে লাগামহীন মূল্য বৃদ্ধি করে রমজানের গুরুত্বকে ম্লান করে দেয়া হয়। আবার রমজান মাসেও একশ্রেণির লম্পট লোক মাহে রমজানেও অশ্লীলতা-বেহায়াপনা, বেপর্দা-নগ্নতার ছড়াছড়ি করে রোজাদারদের পবিত্রতা বিনষ্ট করার পরিবেশ তৈরি করে। এসকল অন্যায় ও খোদাদ্রোহীতাকে রাষ্ট্রীয়ভাবে নির্মূল করতে কার্যকরি ব্যবস্থা নেয়ার দায়িত্ব সরকারের।রমজানের দাবি পুরণে পবিত্রতা রক্ষা, অশ্লীলতা পরিহার, মূল্যবৃদ্ধি না করা, ভেজাল না দেয়া সরকারসহ প্রত্যেক মুসলমানের ঈমানী দায়িত্ব।

সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা ইমতিয়াজ আলম বলেন, রহমত, মাগফিরাত, নাজাত ও মহা গ্রন্থ আল-কুরআন নাযিল ও ঐতিহাসিক বদর যুদ্ধ সংগঠিত হওয়ার মাস রমজান। রমজানের পবিত্রতা রক্ষা করা প্রত্যেক মুসলমানের ঈমানী দায়িত্ব।

কর্মসূচি: ১. ৬ জুন ঢাকা মহানগরীর থানায় থানায় সমাবেশ ও মিছিল ২. পীর সাহেব চরমোনাই স্বাক্ষরিত পত্র থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার নিকট পেশ। ৩. ১ রমজান- ২০ রমজান কুফরী সিলেবাসের বিরুদ্ধে জনমত গঠনের লক্ষ্যে থানা ও ওয়ার্ডে আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল, ৪. ১৭ রমজান বাদ জোহর ঐতিহাসিক বদর দিবসের আলোচনা ও ইফতার মাহফিল।

সমাবেশ-এর পূর্বে মাহে রমজানকে স্বাগত জানিয়ে পল্টন হাউজবিলডিং থেকে একটি বিশাল মিছিল দৈনিক বাংলা, বায়তুল মুকাররম, পুরানা পল্টন মোড় হয়ে হাউজ বিল্ডিং এসে শেষ হয়।






মন্তব্য চালু নেই