মেইন ম্যেনু

মিয়ানমার সীমান্ত দিয়ে পানির বানের মত ঢুকে পড়ছে আমদানী নিষিদ্ধ সিগারেট

মিয়ানমারের সীমান্ত দিয়ে পানির বানের মত বাংলাদেশে ঢুকে পড়ছে আমদানি নিষিদ্ধ অবৈধ সিগারেট। হাজার হাজার কার্টুন বিভিন্ন ব্রান্ডের অবৈধ সিগারেট চোরাই পথে আসায় উখিয়া-টেকনাফে সয়লাবে ভরে গেছে। ফলে ট্যাস্ক ফাঁকির পাশা-পাশি দেশীয় উৎপাদিত সিগারেট মার খেতে বসেছে। কয়েকটি বড় বড় চোরা চালানি সিন্ডিকেট অবৈধ সিগারেট বাংলাদেশে নিয়ে আসছে।

জানা যায়, অতিসম্প্রীতি উখিয়া-টেকনাফ হাট বাজারে অবৈধ সিগারেটের বাজার জাত দেখা মিলে। মিয়ানমার হতে এসব আমদানি নিষিদ্ধ বিভিন্ন ব্রান্ডের সিগারেট কম দামে পাওয়া যাওয়ায় ক্রেতা বা ধূমপায়ীরা এসব সিগারেটের প্রতি আসত্ত হয়ে পড়ে। উখিয়া উপজেলার ঘুমধুম, তমব্র“, আমতলী, ফাত্রাজীরি, ডিগলিয়া, দরগাহবিল, খেওয়াছড়ি, পাতাবাড়ী, বালুখালী, আনজুমান পাড়া, রহমতের বিল, বালুখালীসহ টেকনাফের বিভিন্ন সীমান্ত পয়েন্ট দিয়ে বস্তা বস্তায় বিভিন্ন ব্রান্ডের সিগারেট পাচার হয়ে আসছে।

অভিযোগে প্রকাশ, শক্তিশালী কয়েকটি চোর চালানী সিন্ডিকেট অবৈধ সিগারেট পাচার ব্যবসায় জড়িত। প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ টাকার এসব আমদানী নিষিদ্ধ সিগারেট বাজার জাত করা হচ্ছে। কোটবাজার ও উখিয়া সদর স্টেশনের কয়েকজন মুদির দোকানী জানান, চোরাই পথে আসা এসব সিগারেটের চাহিদা হঠাৎ করে বেড়ে যাওয়ায় এখন প্রত্যেক মুদির দোকানে হাজার হাজার কার্টুন সিগারেট বিক্রি করার জন্য মজুত রাখা হয়েছে।

এছাড়াও প্রতিটি পানের দোকানে দেদারছে বিক্রির ধূম পড়েছে অবৈধ সিগারেটের। অনেক ব্যবসায়ী বলেন, উখিয়া-টেকনাফ থেকে পচুর পরিমান সিগারেটের চালান দেশের বিভিন্ন স্থানে পাচার করছে চোরা চালানী সিন্ডিকেট। অনেকের মতে সীমান্ত দায়িত্বে নিয়োজিত আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যদেরকে ফাঁকি দিয়ে মিয়ানমার, থাইল্যান্ডের উৎপাদিত সিগারেট বাংলাদেশ সীমান্ত দিয়ে নিয়ে আসছে।

সচেতন মহল জানান, আমদানী নিষিদ্ধ অবৈধ সিগারেট মিয়ানমার সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে পাচার হয়ে আসায় সরকার বিপুল পরিমান ট্র্যাস্ক থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এছাড়াও দেশীয় উৎপাদিত সিগারেট মার খেতে বসেছে। বিজিবি, পুলিশ ও অন্যান্য আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা একটু তৎপর ও কড়া নজরদারী করলে পাচার হয়ে আসা অবৈধ সিগারেট বাজার জাত বন্ধের পাশা-পাশি চোরা চালানি সিন্ডিকেট সদস্যদেরকে গ্রেফতার করা সম্ভব হবে। এমনকি উখিয়া কোটবাজার ও মরিচ্যা স্টেশন সহ টেকনাফের হাট বাজার গুলোর মুদির দোকান ও পানের দোকানে অভিযান পরিচালনা করা হবে লক্ষ লক্ষ কার্টুন অবৈধ সিগারেট জদ্ধ করা যাবে।






মন্তব্য চালু নেই