মেইন ম্যেনু

মুস্তাফিজের নিরাপত্তায় সর্বক্ষণিক নিয়োজিত পুলিশ

এক বছর ধরেই মুস্তাফিজ কালিগঞ্জের মহানায়ক। তবে আইপিএল জয় করার পর সেটা আরেক ধাপ এগিয়ে গেছে। শিরোপা জিতে ৩০ মে সোমবার রাত সাড়ে ১০টায় ঢাকা শাহাজালাল আর্ন্তজাতিক বিমান বন্দরে পৌছালে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী আরিফ খান জয় তাকে সংবধনা জানায়। ঢাকা থেকে ৩১ মে সন্ধ্যায় বিমান যোগে মুস্তাফিজ যশোর বিমান বন্দরে আসেন। সেখান থেকে গাড়িযোগে সরাসরি রাত ১০টা ৫৫ মিনিটে বাড়িতে আসেন।

বাড়ির মাটিতে পা রেখেই মুস্তাফিজ তার প্রিয় পিতা মাতাকে বুকে জড়িয়ে ধরেন। এ দিকে মুস্তাফিজুর ঢাকা থেকে বাড়িতে আসবেন এই খবরে সাতক্ষীরাসহ বিভিন্ন উপজেলা থেকে মুস্তাফিজ ভক্তরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় থাকে একনজর দেখার জন্য।পরে সাংবাদিকদের উপস্থিতি লক্ষ্য করে তাদের সাথেও কুশল বিনিময় করেন।

মুস্তাফিজ ক্লান্ত থাকায় সাংবাদিকদের ছবি তোলার জন্য অল্প সময় দিয়ে নিজের বাড়ির দ্বোতালায় বিশ্রামে চলে যায়। ঘরে গিয়ে জামা খুলে বুকভরা নিশ্বাস নিয়ে সকল ক্লান্তি দূর করে খাটের উপর শুয়ে পড়েন। এসময় তার মা মাহমুদা, পিতা আবুল কাশেম ও পরিবারের সদস্যরা একে এক সকলেই তার পাশে গিয়ে কথা বলে তার শারীরিক খোঁজখবর নিতে থাকেন।

মুস্তাফিজের বন্ধু হাবু, হাফিজুর, যোতিন জানান, মুস্তাফিজ যশোর থেকে আসার সময় মাথাব্যথা ও বমি করে অসুস্থতার কারণে বেশি কথা বলতে পারছে না।

তার ভাই মোকলেছুর ও চাচা ফজলুর রহমান বলেন, কয়েক মাস পরে সে বাড়িতে এসেছে কয়েক দিন বাড়িতে থাকবে। আপনারা তার জন্য বেশি বেশি দোয়া করবেন।

দীর্ঘদিন পরে মুস্তাফিজ বাড়িতে আসছে তাই মা মাহমুদা খাতুন ছেলের জন্য তার পছন্দের খাবার রান্না করেছে। ক্রিকেটার মুস্তাফিজের খাবারের মধ্যে রয়েছে মুরগির গোশত, রুই মাছের ঝোল, বেগুনভাজা ও পুইশাকের তরকারি।

তবে সবকিছুর ওপরে কথা হলো, মুস্তাফিজুরের বাড়িতে মিষ্টি বিতরণ ও আনন্দের জোয়ার বইছে। মুস্তাফিজ বাড়িতে আসায় কালিগঞ্জ থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক এমদাদ হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশ বাহিনীর সার্বিক নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত আছে।






মন্তব্য চালু নেই